বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানের শুরুতে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদ স্মরণে একটি ভিডিও প্রদর্শিত হয়। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবময় দুই দশকের পথ চলায় অসামান্য সব অর্জনের ওপর আলোকপাত করে একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়।
অনুষ্ঠানে শিক্ষা বিষয়ে স্যার ফজলে হাসান আবেদের দর্শন নিয়ে আলোচনা করেন ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারপারসন তামারা হাসান আবেদ। তিনি বলেন, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির যাত্রার শুরুটার দিকে তাকালে প্রথমেই মনে পড়ে এই প্রতিষ্ঠান তৈরির ক্ষেত্রে স্যার ফজলে হাসানের গভীর আবেগের কথা। ২০ বছর পর বিশ্ববিদ্যালয়টি বৈশ্বিকভাবে এখন অনেক বেশি সম্পৃক্ত, বিশ্বের অনেক নামকরা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সহযোগিতামূলক সম্পর্ক তৈরি হয়েছে এবং সেই সঙ্গে এখানে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীর সংখ্যাও বেড়েছে। তামারা আরও বলেন, আমরা এখন শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক পাঠদান এবং গবেষণার ক্ষেত্র প্রসারে সচেষ্ট হয়েছি।

ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর ভিনসেন্ট চ্যাং বলেন, ‘মেধাবী শিক্ষার্থী ও যোগ্য নেতৃত্ব গড়ে তুলতে ২০ বছর আগে স্যার ফজলে হাসান ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করেন। এখন আমরা একটি বৈশ্বিক বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে ওঠার লক্ষ্য স্থির করেছি।’ এই যাত্রা সহজ নয়, তবে আগামী ২০ বছরের মধ্যে সেই লক্ষ্য অর্জিত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

২০ বছর পূর্তিকে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির জন্য মাইলফলক বলে অভিহিত করেন স্কুল অব জেনারেল এডুকেশনের ডিন সামিয়া হক। তিনি বলেন, অনেক বছরের চেষ্টায় ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি দেশের সেরা একটি বিদ্যাপীঠে পরিণত হয়েছে।

ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠায় স্যার ফজলে হাসানের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে স্মৃতিচারণা করেন একাডেমিক কাউন্সিলের প্রাক্তন সদস্য রিয়াজ খান। তিনি বলেন, স্যার ফজলে হাসান যখন ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠার কথা চিন্তা করেন, তখন আমরা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে আলোচনা করি। এটা স্পষ্ট ছিল যে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি নিয়ে শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা বেশ ইতিবাচক ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে বিষয়টি আমাদের আত্মবিশ্বাস অনেকটা বাড়িয়ে দিয়েছিল।

অনুষ্ঠানে রবীন্দ্রসংগীত ‘আকাশ আমায় ভরলো আলোয়’ এবং নজরুলগীতি ‘একি অপরূপ রূপে মা তোমায়’ পরিবেশ করেন ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। ‘প্রাইড অব ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি’ শীর্ষক পর্বে বিশ্ববিদ্যালয়টির সেরা কয়েকজন অ্যালামনাইয়ের বিভিন্ন অর্জন সবার সামনে তুলে ধরা হয়। সেই সঙ্গে অনুষ্ঠানে রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় নির্মাণাধীন বিশ্ববিদ্যালটির স্থায়ী ক্যাম্পাসের একটি ভিডিও চিত্র প্রদর্শিত হয়।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন