default-image

‘মেয়েটা বেশ মেধাবী। পিইসি, জেএসসি ও এসএসসি—সব পরীক্ষাতেই জিপিএ–৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। শ্রীমঙ্গল সরকারি কলেজে ভর্তি হওয়ার পরপর জাতীয় পর্যায়ে বেশ কয়েকটি পুরস্কারও পেয়ে গেছে।’ বলছিলেন শ্রীমঙ্গল সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো. আবুল কালাম আজাদ।

মা-বাবা-ভাইকে নিয়ে তাসনিম ইবনাতের ছোট্ট পরিবার। তাসনিম বলে, ‘পড়তে আমার সব সময় ভালো লাগে। পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি গল্প, উপন্যাস ও বিজ্ঞানভিত্তিক বই পড়ি। আমার অবসরগুলো বই পড়েই কাটে। যুব রেড ক্রিসেন্ট শ্রীমঙ্গল কলেজ শাখার সদস্য হয়ে মানুষকে রক্তদানে উৎসাহিত করতেও কাজ করেছি আমি।’

বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজিত সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ ২০১৯ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে জাতীয় পর্যায়ে পুরস্কার পেয়েছে তাসনিম ইবনাত। সৃজনশীল মেধা অন্বেষণে বিভাগীয় পর্যায়ের গণিত ও কম্পিউটার বিজ্ঞান বিষয়েও ২০১৯ সালে সেরা মেধাবী নির্বাচিত হয় সে। জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৯-এ উপজেলা পর্যায়ে সে শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী হয়েছিল। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ বোটানি অলিম্পিয়াডের জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণ করে তাসনিম অষ্টম স্থান অধিকার করেছিল। তাই কলেজের সবাই তাকে একনামে চেনে। কলেজের জন্য সুনাম বয়ে আনার পুরস্কার হিসেবে কিছুদিন আগে কলেজের পক্ষ থেকে তাকে দেওয়া হয়েছে সম্মাননা।

এমবিবিএস পাস করে মানুষের সেবা করতে চায় তাসনিম ইবনাত। চিকিৎসক হয়ে সে ফিরে আসতে চায় নিজ এলাকায়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0