default-image

দেশের সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএসের প্রথম বর্ষে ভর্তিপ্রক্রিয়া কবে শুরু হতে পারে, তা জানিয়েছে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর। ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে গত রোববার। এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় প্রাথমিকভাবে যোগ্য বিবেচিত হয়েছেন ৪৮ হাজার ৯৭৫ জন। তাঁদের মধ্যে প্রথম ৪ হাজার ৩৫০ জন উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীকে ৩৭টি সরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির জন্য নির্বাচন করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশে সাত দিনের বিধিনিষেধ চলছে। সংক্রমণ না কমলে প্রয়োজনে এ বিধিনিষেধ আরও বাড়তে পারে বলে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। এ অবস্থায় এরপরই ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তিপ্রক্রিয়া শুরু করতে চায় স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর ৪ এপ্রিল এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, কোভিড-১৯ মহামারি পরিস্থিতি বাস্তবতা বিবেচনাপূর্বক শিক্ষার্থীদের ভর্তির তারিখ পরে জানানো হবে।

এদিকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে যাঁরা প্রত্যাশিত ফলাফল পাননি, তাঁদের ফল পুনর্নিরীক্ষার আবেদনের সুযোগ দিচ্ছে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর। টেলিটক সিমের মাধ্যমে এক হাজার টাকা ফি দিয়ে ২০ এপ্রিল থেকে তাঁরা পুনর্নিরীক্ষার আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করা যাবে আগামী ৫ মে পর্যন্ত।

default-image

বিজ্ঞপ্তিতে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর জানিয়েছে, ২০ এপ্রিল থেকে ৫ মের মধ্যে এক হাজার টাকা টেলিটকে এসএমএসের মাধ্যমে জমা দিয়ে পুনর্নিরীক্ষার আবেদন করা যাবে। এ জন্য টেলিটকের যেকোনো প্রি-পেইড মুঠোফোন থেকে আবেদন করা যাবে। এ জন্য DGHS স্পেস RSC স্পেস ROLL NO লিখে পাঠাতে হবে 16222 নম্বরে। ফিরতি এসএমএসে আবেদনকারী একটি পিন নম্বর পাবেন। ফি প্রদানের জন্য প্রাপ্ত পিন নম্বর দিয়ে DGHS স্পেস RSC স্পেস YES স্পেস PIN নম্বর লিখে পাঠাতে হবে 16222 নম্বরে। এরপর প্রাপ্তি স্বীকার একটি এসএমএস পাবেন আবেদনকারী।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, পুনর্নিরীক্ষার ফল আবেদনকারীকে যথাসময়ে জানানো হবে। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে। বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির বিষয়েও পরে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হবে।

আসন কত

২ এপ্রিল সারা দেশের ১৯টি কেন্দ্রের ৫৫টি ভেন্যুতে একযোগে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর গত রোববার (৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়। জাতীয় মেধার ভিত্তিতে সরকারি ৩৭টি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য ৪ হাজার ৩৫০ জন ভর্তি–ইচ্ছুক নির্বাচিত হন।

এর মধ্যে সাধারণ আসন ৪ হাজার ২৩০টি। আর মুক্তিযোদ্ধার পুত্র–কন্যা এবং পুত্র-কন্যাদের পুত্র-কন্যার জন্য ৮৭টি, রাঙামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি ৩ পাবর্ত্য জেলার জন্য রাঙামাটি মেডিকেল কলেজে ১৩ আসন ও পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীর জন্য ২০টি নিয়ে ৩৩টি সংরক্ষিত আসনসহ মোট আসন ৪ হাজার ৩৫০টি। একই সঙ্গে মেধাভিত্তিক ১ হাজার ৪২ জনকে অপেক্ষমাণ তালিকায় রাখা হয়েছে। আসন শূন্য হলে মেধা ও পছন্দ অনুযায়ী তাঁরা ভর্তির সুযোগ পাবেন। কোভিড পরিস্থিতি বিবেচনায় ভর্তির তারিখ পরে জানানো হবে।

ভর্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন