বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়েছে, দ্বিতীয় দফায় ক গ্রুপে ৩০৮১ থেকে ৪৫০০ মেধাক্রম এবং খ গ্রুপে ১০১ থেকে ৩০০ মেধাতালিকার প্রার্থীদের ডাকা হয়েছে। এ মেধাক্রমের ভিত্তিতে নিরীক্ষা কমিটির কাছে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের আসন খালি থাকা সাপেক্ষে ভর্তি করানো হবে। আসনসংখ্যার চেয়ে বেশি শিক্ষার্থী উপস্থিত হলে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে মেধাক্রম অনুযায়ী একটি তালিকা সংরক্ষণ করা হবে। পরবর্তী সময়ে ওই তালিকা থেকে আসন খালি হওয়া সাপেক্ষে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীদের পর্যায়ক্রমে ডাকা হবে।

ভর্তি কার্যক্রম চুয়েট, কুয়েট এবং কয়েটি কেন্দ্রে একযোগে অনুষ্ঠিত হবে। শিক্ষার্থী যে কেন্দ্র থেকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন, ওই কেন্দ্রেই উপস্থিত হয়ে ভর্তির জন্য প্রয়োজনীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করবেন।

শিক্ষার্থীদের করণীয়

*বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত মেধাক্রমধারী শিক্ষার্থীরা Online Admission Form ও তাঁদের প্রদান করে তথ্য ও পছন্দক্রম ১৯ ডিসেম্বর সকাল নয়টা পর্যন্ত প্রয়োজনে পরিবর্তন করতে পেরেছেন। ওই সময়ের পর ভর্তির জন্য নির্বাচিত প্রার্থীদের Online Admission Form লক হয়ে যাবে। এরপর অনলাইনে আর কোনো তথ্য বা পছন্দক্রম পরিবর্তন করা যাবে না। তবে শুধু ভর্তির দিন নিরীক্ষা বোর্ডের সামনে কোনো প্রকার ভুলত্রুটি থাকলে সংশোধন করা যাবে।

*পরদিন শিক্ষার্থীদের প্রাপ্ত বিভাগ ও বিশ্ববিদ্যালয় দেখে কেবল ভর্তি কমিটির অনুমোদন করা স্বাস্থ্য পরীক্ষায় যোগ্য শিক্ষার্থীদের ভর্তির জন্য নির্ধারিত ১৮ হাজার ৫০০ টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্দেশিত ব্যাংকে বেলা তিনটার মধ্যে জমা দিতে হবে।

*দ্বিতীয় দফায় ভর্তি প্রক্রিয়াসংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য এই লিংক থেকে জানা যাবে। এ ছাড়া অফিস চলাকালে ০১৭৫৯১২৩১০৩ (চুয়েট), ০১৭৯৯২৭৩৬৫৫ (কুয়েট) ও ০১৪০১৮৪৫১২৭ (রুয়েট) নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে।

ভর্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন