বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর অংশ হিসেবে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ক-ইউনিটে ৩ হাজার ৪২৫ জন, খ-ইউনিটে ১ হাজার ৭৪১ জন, গ-ইউনিটে ৪৭০ জন, ঘ-ইউনিটে ৩ হাজার ১৩ জন এবং চ-ইউনিটের ৪৮০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবেন। গতকাল বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ছাদেকুল আরেফিন বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমাদের কাছে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছিল, আমরা সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছি। ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় ব্যবস্থাপনাগত সহযোগিতা করব আমরা। সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা পরিচালনার জন্য সব ধরনের নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন করতে সহযোগিতা করবেন।’

পরীক্ষার তারিখ ও মানবণ্টন

আগামী ১ অক্টোবর বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ক ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে শুরু হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এবারের ভর্তি পরীক্ষা। এরপর ২ অক্টোবর কলা অনুষদভুক্ত খ ইউনিট, ৯ অক্টোবর চারুকলা অনুষদভুক্ত চ ইউনিট (বহুনির্বাচনী), ২২ অক্টোবর ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদভুক্ত গ ইউনিট ও ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে সামাজিকবিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ঘ ইউনিটের পরীক্ষা। পরীক্ষা শুরু হবে বেলা ১১টা থেকে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি ইউনিটে এবার মোট ১২০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষা হবে। সেখানে মূল পরীক্ষায় (বহুনির্বাচনী ও লিখিত) ১০০ এবং এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ১০ করে মোট ২০ নম্বর থাকবে। ক, খ, গ ও ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ৬০ নম্বরের বহুনির্বাচনী ও ৪০ নম্বরের লিখিত অংশ থাকবে। উভয় অংশের জন্য ৪৫ মিনিট করে সময় থাকবে। তবে চ ইউনিটের ৪০ নম্বরের বহুনির্বাচনী পরীক্ষার জন্য ৩০ মিনিট আর ৬০ নম্বরের অঙ্কন পরীক্ষার জন্য ৪৫ মিনিট সময় বরাদ্দ থাকবে। দেশের আটটি বিভাগীয় শহরের কেন্দ্রে নির্ধারিত তারিখে বেলা ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত পরীক্ষাগুলো অনুষ্ঠিত হবে।

আসন ও আবেদন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এই ভর্তি পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল গত বছর। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে তা পিছিয়ে যায়। প্রথম দফায় ঘোষিত তারিখ অনুযায়ী ২১ মে থেকে ৫ জুন পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে গত ২৯ এপ্রিল তা পরিবর্তন করা হয়। সেদিন ৩১ জুলাই থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত পরীক্ষা আয়োজনের সিদ্ধান্ত হয়। ১৩ জুলাই সেটিও পরিবর্তন করে অক্টোবরে পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫টি ইউনিটে ৭ হাজার ১৪৮টি আসনের বিপরীতে এবার মোট আবেদন করেছেন ৩ লাখ ২৪ হাজার ৩৪০ জন। সে হিসাবে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ৪৫ জন।

ক ইউনিটে ১ হাজার ৮১৫ আসনের বিপরীতে ১ লাখ ১৭ হাজার ৯৫৭ জন আবেদন করেছেন। খ ইউনিটে ২ হাজার ৩৭৮ আসনের বিপরীতে ৪৭ হাজার ৬৩২ জন, গ ইউনিটে ১ হাজার ২৫০ আসনের বিপরীতে ২৭ হাজার ৩৭৪ জন, ঘ ইউনিটে ১ হাজার ৫৭০ আসনের বিপরীতে ১ লাখ ১৫ হাজার ৮৮১ জন আবেদন করেছেন। অন্যদিকে চ ইউনিটে ১৩৫টি আসনের বিপরীতে আবেদন জমা পড়েছে ১৫ হাজার ৪৯৬টি৷ সেই হিসাবে প্রতি আসনের জন্য ক ইউনিটে ৬৫ জন, খ ইউনিটে ২০ জন, গ ইউনিটে ২২ জন, ঘ ইউনিটে ৭৪ জন ও চ ইউনিটে ১১৫ জন লড়বেন৷

ঢাকা বিভাগের ভর্তি পরীক্ষার কেন্দ্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। এ ছাড়া অন্য যে সাতটি বিভাগীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এবারের ভর্তি পরীক্ষা হবে, সেগুলো হলো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (ময়মনসিংহ), খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (সিলেট), বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এবং বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (রংপুর)৷

এর মধ্যে ৫ ইউনিটের ১ লাখ ৬৪ হাজার ৬০৬ জন শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষা দেবেন৷ সবচেয়ে কম ৭ হাজার ৯১ জন পরীক্ষা দেবেন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে৷

ভর্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন