default-image

স্বদেশ

মূলভাব: নদীমাতৃক আমাদের এই বাংলাদেশ। এই দেশের মাঠে মাঠে যেমন ফলে নানা ফসল, তেমনি রয়েছে অসংখ্য নদী। প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য আর জীবনযাত্রার বৈচিত্র্য ছোট্ট কিশোর মুগ্ধ চোখে দেখে। নদীর জোয়ার, নদীতীরে নৌকা বেঁধে রাখা, গাছে গাছে পাখির কলকাকলি—সবকিছুই ছেলেটি মনের ভেতর ধরে রাখছে। মনোমুগ্ধকর স্বদেশের এই ছবি ছেলেটির মনে নিজের দেশের জন্য মায়া-মমতা ও ভালোবাসার অনুভূতি জোগাচ্ছে।

প্রশ্ন: শব্দগুলোর অর্থ লেখো।

কড়ি, টুকটুক, শিল্পী, পাখপাখালি, জোয়ার, সারে সারে, চেনা, তুলি।

কড়ি—একধরনের ছোট্ট সাদা ঝিনুক।

টুকটুক—সুন্দর, গাঢ়।

শিল্পী—চিত্রকর, যিনি ছবি আঁকেন, যিনি

কোনো শিল্পকলার চর্চা করেন

তিনিই শিল্পী।

পাখপাখালি— নানা ধরনের পাখি।

জোয়ার—চাঁদ ও সূর্যের আকর্ষণে ফুলে ওঠা নদী বা সাগরের পানি।

সারে সারে—সারি সারি।

চেনা—পরিচিত।

তুলি—ছবি আঁকার বুরুশ।

বিজ্ঞাপন

প্রশ্ন: নিচের শব্দগুলো খালি জায়গায় বসিয়ে বাক্য তৈরি করো।

টুকটুকে, শিল্পী, পাখপাখালির, কড়ি

ক. এ দেশে আগে এখনকার মতো টাকাপয়সা ছিল না। লোকে কেনাবেচা করত দিয়ে।

খ. মেলা থেকে বোনের জন্য একটা জামা কিনে আনব।

গ. জয়নুল আবেদিন ছিলেন একজন বড় মাপের চিত্র ।

ঘ. বাংলাদেশের গাছে গাছে শোনা যায় কলকাকলি।

উত্তর

ক. এ দেশে আগে এখনকার মতো টাকাপয়সা ছিল না। লোকে কেনাবেচা করত কড়ি দিয়ে।

খ. মেলা থেকে বোনের জন্য টুকটুকে একটা জামা কিনে আনব।

গ. জয়নুল আবেদিন ছিলেন একজন বড় মাপের চিত্র শিল্পী।

ঘ. বাংলাদেশের গাছে গাছে শোনা যায় পাখপাখালির কলকাকলি।

প্রশ্ন: কোন ছবিটি টাকা দিয়ে কেনা যায় না?

উত্তর: সুজলা, সুফলা, শস্য-শ্যামলা আমাদের এই বাংলাদেশ। এ দেশের মাঠে মাঠে ফলানো নানা ধরনের ফসল, গাছে গাছে পাখপাখালি, আঁকাবাঁকা অসংখ্য বহতা নদী আর বন-পাহাড়ের অপরূপ সৌন্দর্যের ছবি শিল্পী রংতুলি দিয়ে আঁকেন। শিল্পীর আঁকা এসব ছবি কখনো কখনো বিক্রি হয়। অনেক দাম দিয়ে অনেকে কিনে নেন। কিন্তু শান্ত-শ্যামলা প্রকৃতির মনজুড়ানো ছবিটি টাকা দিয়ে কেনা যায় না। এই ছবি চোখ বুঝে ও মনের মধ্যে অনুভব করা যায়।

বাকি অংশ ছাপা হবে আগামীকাল

বিজ্ঞাপন
পরীক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন