default-image

ভাড়া বাড়িতে গড়ে তোলা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এসএসসি ও সমমানের বোর্ড পরীক্ষার কেন্দ্র দেওয়া হবে না। স্থায়ী ভবনে নির্মিত প্রতিষ্ঠানে নতুন কেন্দ্র স্থাপন বা পরিবর্তনের জন্য ১৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে আবেদন করতে বলা হয়েছে।

গতকাল সোমবার ঢাকা শিক্ষা বোর্ড এ–সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করেছে। এতে বলা হয়েছে, আসন্ন ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষার নতুন কেন্দ্র স্থাপন ও কেন্দ্র পরিবর্তনের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ১৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ঢাকা বোর্ডে পাঠাতে হবে। প্রস্তাবিত কেন্দ্রের প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের নিজস্ব প্যাডে আবেদন করবেন। নতুন কেন্দ্রের জন্য আবেদনের সঙ্গে তিন হাজার টাকা সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে জমা দিতে হবে। ফি জমা দেওয়ার রশিদ আবেদনপত্রের সঙ্গে জমা দিতে হবে।
যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভাড়া বাড়িতে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে, সেসব কেন্দ্রের আবেদন করার প্রয়োজন নেই। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইট থেকে নতুন কেন্দ্র বা পরিবর্তনের নির্ধারিত ছক ডাউনলোড করে সেটা পূরণ করে আবেদনপত্রের সঙ্গে জমা দিতে বলা হয়েছে।

এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) পরিদর্শন প্রতিবেদন জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কাছে পাঠাতে হবে। প্রস্তাবিত কেন্দ্রটি বোর্ডের অনুমোদন পেলে পার্শ্ববর্তী যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সেই কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে ইচ্ছুক, সেসব প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের নিজস্ব প্যাডে সুস্পষ্ট ঘোষণাসহ সম্মতিপত্রের মূল কপি আবেদনপত্রের সঙ্গে জমা দিতে হবে।

বিজ্ঞাপন
default-image

নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে, নির্ধারিত সময়ের পর পরীক্ষার কেন্দ্রের জন্য আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে না। এর আগে যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ২০২০ সালের নতুন কেন্দ্র বা পরিবর্তনের জন্য আবেদন করেছে, নির্ধারিত ছক অনুযায়ী তাদেরও পুনরায় আবেদন করতে বলা হয়েছে।

এর আগে ২০২১ সালের এসএসসি শিক্ষার্থীদের জন্য সিলেবাস কমিয়ে আবার পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে। পরীক্ষার সিলেবাসের বিস্তারিত ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) তৈরি এই পুনর্বিন্যাসকৃত পাঠ্যসূচি ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের আওতাধীন সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকদের পাঠানো হয়েছে। এনসিটিবির বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে সিলেবাস পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে। এর আগে গত ২৫ জানুয়ারি এসএসসির সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ করেছিল ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। এ নিয়ে আপত্তির পর সিলেবাস পুনর্বিন্যাস করার উদ্যোগ নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সিলেবাস পুনর্বিন্যাস করার দায়িত্ব দেওয়া হয় এনসিটিবিকে। ২০২১ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা পুনর্বিন্যাস করা সিলেবাসের ভিত্তিতে অনুষ্ঠিত হবে।

২০২০ সালের মার্চ মাস থেকে করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। সর্বশেষ ছুটি ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এর ফলে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা ঠিকমতো করা হয়ে ওঠেনি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর এসএসসির ক্ষেত্রে ৬০ কর্মদিবস এবং এইচএসসির ক্ষেত্রে ৮৪টি কর্মদিবস নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কবে নাগাদ খুলবে এবং কবে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে, সে-সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট কোনো তারিখ ঘোষণা করা হয়নি।

কয়েক দিন আগে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি অনলাইনে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, ২০২১ সালের জুন মাসে এসএসসি এবং জুলাই-আগস্ট মাসে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে পারে। আর সে লক্ষ্যেই মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে এসএসসি এবং জুন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে এইচএসসির ক্লাস শেষ করতে প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

পরীক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন