default-image

করোনাভাইরাসের কারণে গত বছর সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এই অ্যাসাইনমেন্টের ফলপ্রসূতা যাচাইয়ের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ জন্য ১০০টি মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে সমীক্ষা চালানো হবে। এটিকে সরকার বলছে ‘পাইলটিং’ প্রোগ্রাম। গতকাল রোববার (১৪ মার্চ) মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) এ-সংক্রান্ত একটি আদেশ জারি করেছে।

মাউশি বলছে, কোভিড-২০১৯ অতিমারির কারণে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনায় ২০২০ শিক্ষাবর্ষে মাধ্যমিক পর্যায়ের ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম পরিচালিত হয়। অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রমের ফলপ্রসূতা যাচাইয়ের লক্ষ্যে ৬৪টি জেলা থেকে ২ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাছাই করা হয়েছে।প্রাথমিকভাবে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে পাইলট প্রোগ্রামের জন্য ১০০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্বাচন করা হয়েছে। এ পাইলট প্রোগ্রামের জন্য মনোনীত কর্মকর্তা, প্রধান শিক্ষক, শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের অংশীজন হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে।

default-image

আদেশে বলা হয়েছে, অ্যাসাইনমেন্টের ফলপ্রসূতা যাচাইয়ের লক্ষ্যে গুগল ফরমের মাধ্যমে সমীক্ষা পরিচালনার জন্য প্রশ্নমালা তৈরি করা হয়েছে। যার লিংক ই-মেইলে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের পাঠানো হয়েছে। সমীক্ষা পরিচালনার প্রশ্নমালার লিংকগুলো পাইলট প্রোগ্রামের জন্য মনোনীত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠাতে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের বলেছে শিক্ষা অধিদপ্তর। সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষক এবং তাঁদের সহায়তায় অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সমীক্ষা পরিচালনার প্রশ্নগুলো পূরণ নিশ্চিত করতে হবে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের। প্রয়োজনে ০২-৫৮৬১০২৫৫ নম্বরে যোগাযোগের পরামর্শ দিয়েছে অধিদপ্তর।

বিজ্ঞাপন
default-image

অধিদপ্তর আরও জানিয়েছে, ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে অবস্থিত বাংলাদেশ পরীক্ষা উন্নয়ন ইউনিট এ গবেষণা কার্যক্রমটি পরিচালনা করছে। এ কার্যক্রমে সার্বিক সহযোগিতা করতে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিশেষভাবে অনুরোধ জানিয়েছে মাউশি।

মাউশির আদেশে মাঠপর্যায়ের মনিটরিং কর্মকর্তাদের জন্য চার দফা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানদের জন্য ১৩ দফা, শিক্ষকদের জন্য চার দফা, অভিভাবকদের জন্য পাঁচ দফা, শিক্ষার্থীদের জন্য পাঁচ দফা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এ দিকে গত ১০ মার্চ ২০২১ শিক্ষাবর্ষে ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট ও মূল্যায়ন নির্দেশনা প্রকাশ করেছে মাউশি। গত বছরের মতো এ বছরও ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট ও নির্ধারিত কাজের মাধ্যমে মূল্যায়ন করা হবে। ২০ মার্চ থেকে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এ মূল্যায়ন কার্যক্রম শুরু হবে। সপ্তাহ শুরুর দুই দিন আগে শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট ও নির্ধারিত কাজ প্রকাশ করা হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিটি শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যসূচি পুনর্বিন্যাস করে শিক্ষার্থীদের শিখন প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখতে অ্যাসাইনমেন্ট ও মূল্যায়ন ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে শিক্ষা অধিদপ্তর।

**মাউশির পুরো নির্দেশনাটি এখানে দেখুন

পরীক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন