default-image

ইংরেজি মাধ্যম ও ইংরেজি ভার্সনের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ‘আন্তস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে অনলাইনে ভিডিওচিত্র পাঠানোর মাধ্যমে সারা দেশের ৭০টি স্কুলের ৯৯টি শাখার প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী এবারের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

গতকাল শনিবার ফেসবুক লাইভে প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিক্ষার্থীদের নাম ঘোষণা করা হয়। চিত্রাঙ্কন, সংগীত, আবৃত্তি, নৃত্য ও উপস্থিত বক্তৃতার বিভিন্ন বিভাগে মোট ৮৯ জন শিক্ষার্থী পুরস্কার পেয়েছে। প্রতিবছর ভাষার মাসে (ফেব্রুয়ারিতে) উত্তরার ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ বাংলা ভাষা নিয়ে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।

পুরস্কার বিতরণীতে প্রধান অতিথি হিসেবে অনলাইনে বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ–উপাচার্য (বাংলা অলিম্পিয়াডের উপদেষ্টা) কবি অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ। তিনি বলেন, ‘ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের ব্যাপারে ধারণা ছিল, তারা বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে উদাসীন। কিন্তু দেখলাম, ইংরেজি মাধ্যমেও বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির প্রশংসনীয় চর্চা হয়।’

বিজ্ঞাপন

হোপ স্কুল বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ইয়াশার সাভরান বলেন, হোপ স্কুল সর্বদা নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতিশিক্ষার ক্ষেত্রে যত্নশীল। নিজস্ব সংস্কৃতি দেশকে ভালোবাসতে উদ্বুদ্ধ করে।

পুরস্কার বিতরণীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক আবৃত্তি শিল্পী রুপা চক্রবর্তী, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সৌমিত্র শেখর, অস্ট্রেলিয়ার এমিটি স্কুলের অধ্যক্ষ দেনিস এরদোয়ান, হোপ স্কুলের অধ্যক্ষ রোকসানা জারিন প্রমুখ ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত ছিলেন।

পরীক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন