বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী অনুষ্ঠানে ‍আইসিসিআর ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। তিনি তাঁর পেশাগত জীবনের বিভিন্ন অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন, যাতে শিক্ষার্থীরা বিদেশে তাঁদের নতুন জীবনে খাপখাইয়ে নিতে উৎসাহিত হন। নতুন শিক্ষাজীবন শুরু করতে যাওয়া তরুণ শিক্ষার্থীদের প্রশ্নেরও উত্তর দেন হাইকমিশনার। মিশনের অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও শিক্ষার্থীদের অনুপ্রাণিত ও উৎসাহিত করেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত বাংলাদেশের বিভিন্ন স্তরের প্রাক্তন আইসিসিআর শিক্ষার্থীরা ভারতে অধ্যয়নের অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন এবং তরুণ প্রজন্মের কাছে তাঁদের দিকনির্দেশনা, পরামর্শ ও শুভকামনা জানান।

আইসিসিআর ভারত সরকারের অন্যতম প্রধান কর্মসূচি, যার আওতায় মেধাবী বাংলাদেশী নাগরিকেরা ভারতে স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি স্তরে বিভিন্ন কোর্স করার সুযোগ পান। আইসিসিআর বৃত্তি বাংলাদেশে অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং প্রায় চার হাজারেরও বেশি বাংলাদেশী শিক্ষার্থী এ পর্যন্ত বৃত্তি পেয়েছেন। এসব শিক্ষার্থী ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (আইআইটি), ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এনআইটি), দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়, জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়, ন্যাশনাল ল স্কুল ও রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা লাভ করেছেন। বিখ্যাত কয়েকজন প্রাক্তন আইসিসিআর শিক্ষার্থীর মধ্যে রয়েছেন বিখ্যাত রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, উপাচার্য ডালিম চন্দ্র বর্মণ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন নিসার হোসেন, বিখ্যাত কার্টুনিস্ট শিশির ভট্টাচার্য প্রমুখ।

আইসিসিআর বৃত্তি পাওয়াদের সুযোগ-সুবিধাও আগের থেকে অনেক বেশি বাড়ছে। প্রতি মাসে স্নাতকদের ১৮ হাজার রুপি ও স্নাতকোত্তদের ২০ হাজার রুপি করে প্রদান করে।

উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন