বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, করোনার কারণে দেড় বছরের বেশি সময় ধরে আন্তর্জাতিক সীমান্ত বন্ধ রেখেছিল অস্ট্রেলিয়া। সম্প্রতি বেশ জোরেশোরে টিকাদান কার্যক্রম শুরু করে দেশটি। এর মধ্যেই ৮০ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষকে পূর্ণ ডোজ টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি পৌঁছেছে অস্ট্রেলিয়া। এর জের ধরেই কিছুটা স্বস্তির মুখে নতুন এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো।

এ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ক্যারেন অ্যান্ড্রুস বলেন, টিকাদানের হার বেড়েছে। এ কারণে আপাতত পূর্ণ ডোজ টিকা নেওয়া থাকলে অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদের বিদেশ ভ্রমণের বিষয়ে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। দেশটির নাগরিক নন, এমন কিছু ব্যক্তির ক্ষেত্রেও নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হবে। পাশাপাশি চলতি বছর শেষ হওয়ার আগেই পূর্ণ ডোজ টিকা নেওয়া কর্মী ও শিক্ষার্থীদের অস্ট্রেলিয়ায় ঢুকতে দেওয়া হবে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে বলেন, শিগগিরই সিঙ্গাপুরের জন্য অস্ট্রেলিয়ার সীমান্ত খুলে দেওয়া হবে। এর ফলে পূর্ণ ডোজ টিকা নেওয়া থাকলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভ্রমণকারীরা দুই দেশে মধ্যে যাতায়াত করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে কোয়ারেন্টিনের প্রয়োজন পড়বে না।

করোনা মহামারি শুরুর পর থেকেই নানা কঠোর পদক্ষেপ নেয় অস্ট্রেলিয়া। গত বছরের ২০ মার্চ থেকে বন্ধ করে দেওয়া দেশটির সব সীমান্ত। এতে ভোগান্তির মুখে পড়েন দেশটিতে এবং দেশটির বাইরে অবস্থান করা হাজারো বাসিন্দা।

উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন