default-image

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান পরীক্ষা সম্পন্ন করতে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির সহযোগিতা চেয়ে তাঁকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ই-মেইল থেকে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে। চিঠির অনুমোদন দিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য শিরীণ আখতার। চিঠিতে ছাত্রছাত্রীদের পরামর্শ ও নির্দেশনা কেন্দ্রের পরিচালক সিরাজ উদ দৌল্লাহ শিক্ষার্থীদের অভিভাবক হিসেবে এ সহযোগিতা চান।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিভাগের চলমান পরীক্ষা স্থগিতের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেন। সেখান থেকে তাঁরা পরীক্ষা সম্পন্ন করার দাবি জানান। বিকেলে শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেন শিক্ষক সিরাজ উদ দৌল্লাহ।

শিক্ষামন্ত্রীকে পাঠানো ই–মেইলে বলা হয়, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষার্থী নিম্নমধ্যবিত্ত ও দরিদ্র পরিবারের সন্তান। করোনা মহামারির কারণে অনেক অভিভাবক আর্থিক সংকটে আছেন। এর প্রভাব শিক্ষার্থীদের ওপর সুস্পষ্ট। একাডেমিক কাউন্সিলের অনুমোদনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষাগুলো নেওয়ার ব্যবস্থা হয়। কিন্তু গত মঙ্গলবার শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণা অনুসারে চলমান পরীক্ষাগুলো স্থগিত করা হয়েছে।শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশ নিতে বিশ্ববিদ্যালয়সংলগ্ন ও চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন এলাকায় নিজ খরচে ধারদেনা করে ঘরভাড়া নিয়েছে। এখন পরীক্ষাগুলো স্থগিত করায় শিক্ষার্থীরা আর্থিকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন এবং মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।’

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে সিরাজ উদ দৌল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, ‘এখন মহামারি চলছে। অনেক কিছুই আমাদের ছাড় দিতে হবে। পুরো পৃথিবীতেই খারাপ সময় যাচ্ছে। শিক্ষা থেকে অর্থনীতি, রাজনীতি থেকে শিল্পচর্চা—সব জায়গা স্থবির হয়ে আছে। শিক্ষার্থীরাও দীর্ঘদিন ধরে ঘরে বসে আছেন। এর মধ্যে হল বন্ধ রেখে পরীক্ষা আয়োজন করা হলে, শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে রাজি হন। এখন কারও দুটি, কারও তিনটি, আবার কারও চারটি পরীক্ষা বাকি আছে। এ অবস্থায় পরীক্ষা স্থগিত করে দিলে শিক্ষার্থীরা আরও হতাশ হয়ে পড়বেন।’

ছাত্রছাত্রীদের পরামর্শ ও নির্দেশনা কেন্দ্রের পরিচালক সিরাজ উদ দৌল্লাহ আরও বলেন, ‘আমাদের শিক্ষার্থীদের পাশে থাকতে হবে। শিক্ষার্থীদের উজ্জীবিত করতে হবে।পরীক্ষা শেষ করে ফেললে তাঁদের জীবনে হয়তো কিছুটা গতি ফিরে পাবে। তাই শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির সহযোগিতা চেয়ে এ চিঠি দেওয়া হয়েছে। আশা করি, শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাগবে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী বিষয়টি বিবেচনা করবেন।’

শিক্ষামন্ত্রীকে আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে ই-মেইল করলেও রাত আটটা পর্যন্ত এর কোনো জবাব পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন অধ্যাপক সিরাজ উদ দৌল্লাহ। তিনি বলেন, ই-মেইলের জবাব না পেলে পোস্ট অফিসের মাধ্যমেও চিঠি পাঠানো হবে।

উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন