default-image

বাংলাদেশের টেক্সটাইলস শিক্ষা এবং এ খাতে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে আরও কারিগরি সহায়তা প্রদানের আগ্রহ প্রকাশ করেছে জার্মানিভিত্তিক প্রতিষ্ঠান জিআইজেড। ‘হায়ার এডুকেশন অ্যান্ড লিডারশিপ ডেভেলপমেন্ট ফর সাসটেইনেবেল টেক্সটাইলস ইন বাংলাদেশ (হেল্ড)’ নামে নতুন একটি প্রকল্পের প্রস্তাব দিয়েছে সংস্থাটি।

তিন বছর মেয়াদি প্রস্তাবিত প্রকল্পটি ২০২১ সাল থেকে শুরু করতে চায় সংস্থাটি। প্রকল্পটি টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০-এর উন্নয়ন নীতিমালা বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সরকারকে সহযোগিতা করবে।

জিআইজেডের প্রকল্প ব্যবস্থাপক ক্রিশ্চিয়ান বখম্যানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের এক প্রতিনিধিদল আজ সোমবার ইউজিসি সদস্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ আলমগীরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাতে তিনি নতুন এ প্রকল্প শুরুর আগ্রহ প্রকাশ করেন।

বিজ্ঞাপন

সভায় ক্রিশ্চিয়ান বখম্যান বলেন, জার্মানি-বাংলাদেশ হায়ার এডুকেশন নেটওয়ার্ক ফর সাসটেইনেবেল টেক্সটাইলস প্রকল্পের সফল সমাপ্তির পর তাঁরা বাংলাদেশে হেল্ড প্রকল্প শুরু করতে চান। প্রায় ৩০ কোটি (৩ মিলিয়িন ইউরো) টাকার এ প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশের টেক্সটাইলস খাতে উচ্চশিক্ষার বিস্তার ও দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তুলতে সহযোগিতা করা হবে। প্রকল্পটি দেশের টেক্সটাইলস ও তৈরি পোশাক খাতে গবেষণা উন্নয়ন এবং এ খাতে নিয়োজিত ব্যবস্থাপকদের দক্ষতা বৃদ্ধি করবে। তিনি নতুন প্রকল্প বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

এ প্রসঙ্গে ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক মুহাম্মদ আলমগীর বলেন, জিআইজেড হেস্ট প্রকল্পের মূল্যায়নে দ্বিতীয় ধাপে নতুন করে হেল্ড প্রকল্প শুরুর প্রস্তাব দিয়েছে। নিঃসন্দেহে দেশের জন্য একটি ভালো সংবাদ। তিনি বলেন, প্রস্তাবিত হেল্ড প্রকল্প দেশের টেক্সটাইল শিক্ষার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ব্যাপক অবদান রাখবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে জার্মানি এবং বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সহযোগিতা বিনিময়ে নিবিড় নেটওয়ার্ক স্থাপিত হবে। এর মাধ্যমে দেশের তৈরি পোশাক খাত ব্যাপকভাবে উপকৃত হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রস্তাবিত প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী সংস্থা হিসেবে ইউজিসি, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড এবং বাংলাদেশ টেক্সটাইলস বিশ্ববিদ্যালয়কে রাখার প্রস্তাব দিয়েছে সংস্থাটি। প্রকল্পটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন হবে। প্রকল্পের বিভিন্ন বিষয় পরবর্তী সময়ে চূড়ান্ত করা হবে।

এ সময় ইউজিসি সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ফেরদৌস জামান, কমিশনের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক দুর্গা রানী সরকার ও উপপরিচালক রোকসানা লায়লা উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি

বিজ্ঞাপন
উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন