বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর ফার্মগেটের বিটিআই ভবনে নিজের কোচিং ফোকাসের কার্যালয়ে গেলে এ ঘটনা বলে অভিযোগ জাকারিয়ার। আজ দুপুরে প্রকাশিত খ ইউনিটের ফলাফলে মোট ১২০ নম্বরের মধ্যে ১০০ দশমিক ৫০ নম্বর পেয়ে প্রথম হয়েছেন ঢাকার দারুননাজাত সিদ্দিকিয়া কামিল মাদ্রাসার ছাত্র জাকারিয়া।
জাকারিয়া এক ফেসবুক পোস্টে বিষয়টি জানিয়েছেন। পরে তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি ফোকাসে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির কোচিং করেছি। খ ইউনিটের ফল প্রকাশিত হওয়ার পর ফোকাস কোচিংয়ের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক সংবর্ধনা ও লাইভ অনুষ্ঠানে প্রতিক্রিয়া জানাতে আমি বিকেলে ফোকাসের ফার্মগেট কার্যালয়ে যাই। লাইভ অনুষ্ঠানটি শুরু হওয়ার ঠিক আগেই কিছু লোক জোর করে ওই কার্যালয়ে ঢুকে আমাকে বের করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। তাঁরা আমাকে এই বলে স্বীকৃতি দিতে বাধ্য করার চেষ্টা করেন যে আমি আইকন প্লাসে কোচিং করেছি। এতে আমি অস্বীকৃতি জানালে তাঁরা আমাকে হুমকি-ধমকি ও থাপ্পড় দিয়ে চলে যান।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আইকন প্লাস কোচিং সেন্টারের পরিচালক কামাল হোসেন অবশ্য জাকারিয়াকে হুমকি-ধমকি ও হেনস্তার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমি নিজে সেখানে ছিলাম। বিটিআই ভবনের ছয়তলায় আমাদের কার্যালয় আর দোতলায় ফোকাসের। বিকেলে আমরা যখন কার্যালয় থেকে নামছিলাম, তখন ফোকাস কার্যালয়ে অনেক মানুষের ভিড় দেখতে পাই। ওই কার্যালয়ের ভেতরে গিয়ে দেখি, সেখানে কোনো একটি সভা চলছে এবং স্থানীয় কিছু ব্যক্তি হইহুল্লোড় করছে। তখনই আমরা সেখান থেকে চলে আসি। জাকারিয়াকে থাপ্পড় দেওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই।’

দুপুরে খ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পরপরই এক ফেসবুক পোস্টে আইকন প্লাস কোচিং সেন্টারের যাত্রাবাড়ী শাখার পরিচালক মোহাম্মদ লিমন দাবি করেন, প্রথম হওয়া জাকারিয়া তাঁদের কোচিংয়ের ছাত্র। কিছুক্ষণ পর ওই পোস্টটি শেয়ার করে জাকারিয়া লেখেন, ‘আমি একটা ফ্রি ক্লাস করছিলাম (আইকন প্লাসে)। তখন তারা পরীক্ষা নিয়েছিল। সেখানে আমি প্রথম হয়েছিলাম। ফ্রি ক্লাস করলেই যে কোচিংয়ের ছাত্র হয়, এটা জানতাম না।’

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে আইকন প্লাসের পরিচালক কামাল হোসেন বলেন, ‘আমাদের একটি শাখার পরিচালক এটি দাবি করেছিলেন, যা দুঃখজনক। আইকন প্লাসের মূল ফেসবুক পেজ থেকে এমন কোনো পোস্ট দেওয়া হয়নি। ভর্তি কোচিং শুরুর আগে আমরা একটা সেশন করেছিলাম। সেখানে জাকারিয়া একদিন প্রথম হয়ে পুরস্কার পেয়েছিলেন। আমরা সংশ্লিষ্ট শাখাকে বলে দিয়েছি, জাকারিয়া কৃতিত্ব না দিলে ওই পোস্টটি যেন মুছে দেওয়া হয়।’

উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন