বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশে করোনার প্রভাব বিস্তারের পর থেকে স্কুল-কলেজসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। ঘরবন্দী এই জীবনের কারণে শিশুদের মানসিক বিকাশ ব্যাহত হচ্ছে, যৌক্তিক ক্ষমতা লোপ পাচ্ছে, সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা লোপ পাচ্ছে এবং শিশুদের মধ্যেও হতাশা দেখা দিচ্ছে। এসব বিষয় নিয়ে অভিভাবকেরা অনেক বেশি চিন্তিত। এমন পরিস্থিতিতে শিশুদের মানসিক বিকাশে বিশেষ এ উদ্যোগ নিল ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিউট। কোডিং পরোক্ষভাবে শিশুর মধ্যে সমস্যা সমাধানের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে, তাদের সৃষ্টিশীলতা বাড়ে এবং আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠতে সহায়তা করে।

কোডিং ফর কিডস প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী মো. মনির হোসেন বলেন, ‘বর্তমানে ডিজিটালাইজেশনের প্রভাবে আইটিতে দক্ষ লোকের চাহিদা বেড়েছে। আইটি ও ডিজাইনে পারদর্শিতা থাকলে প্রযুক্তি দুনিয়ার পরিবর্তনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে যেকোনো ক্ষেত্রেই নিজের জন্য সুযোগের সৃষ্টি করতে পারবেন। তাই আগামীর জন্য আমাদের শিশুকে এখন থেকেই প্রস্তুত করতে হবে।’

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিউটের হেড অব অপারেশন মো. আকরাম হোসেন, কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্টের প্রধান ফারজানা বিশ্বাস, ওয়েব অ্যান্ড সফটওয়্যারের প্রধান সোহান হোসেন, ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ ডিপার্টমেন্টের প্রধান দিলশাদ আরাসহ অন্যরা। বিজ্ঞপ্তি

উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন