অ্যাপলের তৈরি স্মার্ট ঘড়ি মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে, এমন ঘটনা শোনা যায় প্রায়ই। তবে এবার মিলল জীবন রক্ষার খবর।
default-image

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ হ্যাম্পশায়ার অঙ্গরাজ্যের সামার্সওয়ার্থের উইলিয়াম রজার্স গত রোববার বরফ ভেঙে নদীতে পড়ে যান। সে সময় হাতে অ্যাপল ওয়াচ না থাকলে, কে জানে কী বিপদ হয়ে যেত!

স্থানীয় টিভি চ্যানেল ডব্লিউএমইউআরের প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায় আজীবন বরফের ওপর স্কেটিং করা শিখিয়ে আসছেন রজার্স। অর্থাৎ আইস স্কেটিংয়ে তিনি কম দক্ষ নন। তবু সামার্সওয়ার্থের স্যামন ফলস নদীর ওপর জমে থাকা বরফ ভেঙে হিমশীতল পানিতে পড়ে যান তিনি।

বরফের গর্ত থেকে বের না হতে পেরে পানিতে বেশ কয়েক মিনিট থাকতে হয় রজার্সকে। তিনি শান্ত থাকার যথেষ্ট চেষ্টা করেছেন। তবু ওই বরফ-শীতল পানিতে ডুবে যাওয়ার অভিজ্ঞতাকে পরবর্তী সময়ে ভয়ংকর বলেছেন তিনি।

রজার্স বলেন, বুঝেছিলাম আমাকে দ্রুত পানি থেকে বেরিয়ে যেতে হবে। তাই প্রথমে সিন্ধুঘোটকের মতো হাতে ভর দিয়ে শরীর টেনে বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছি। তবে ক্রমাগত বরফ ভেঙে যেতে থাকলে সে চেষ্টা ব্যর্থ হয়।

default-image

সে সময় আশপাশে কেউ ছিল না। হাতের নাগালে মুঠোফোনও ছিল না। পানিতে থাকতে থাকতে হাইপোথারমিয়ায় আক্রান্ত হতে শুরু করেন। রজার্স বলেন, নিজেকে বারবার বলছিলাম, আতঙ্কিত হোয়ো না। ভেবে দেখ, এখানে কী কী সুযোগ তোমার হাতে আছে।

বিজ্ঞাপন

মুঠোফোনের নাগাল না পেলেও রজার্সের হাতে থাকা অ্যাপল ওয়াচের কথা মনে পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে স্মার্ট ঘড়িকে জরুরি সেবার জন্য ৯১১ নম্বরে কল করার নির্দেশ দেন।

কল করে দায়িত্বরত কর্মীদের রজার্স বলেন, ‘আর বড়জোর ১০ মিনিট, তারপর আমি হয়তো আর সাড়া দিতে পারব না।’ পাঁচ মিনিটের মাথায় পৌঁছে যান উদ্ধারকর্মীরা।

টিভি সাক্ষাৎকারে উদ্ধারকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন রজার্স। ওদিকে তাঁর সম্পর্কে সামার্সওয়ার্থ দমকল বাহিনীর চিফ জর্জ ক্র্যামলিঙ্গার বলেছেন, তিনি বুদ্ধিমানের মতো কাজ করেছেন। তিনি শান্ত থেকেছেন। আর বেঁচে থাকার জন্য যা প্রয়োজন, তা তিনি করেছেন। বরফের ওপর যাওয়া সত্যিই বিপজ্জনক। এই মুহূর্তে কোনো হিমবাহই নিরাপদ নয়।

default-image

অ্যাপল ওয়াচে ‘ইমার্জেন্সি এসওএস’ নামে একটি সুবিধা আছে। স্থানীয় জরুরি সেবাদাতার নম্বরে কল করাই সেটির কাজ। ভার্চ্যুয়াল সহকারী সিরির মাধ্যমে ব্যবহারকারীকে সে নির্দেশ দিতে হয়। আবার ব্যবহারকারী আচমকা পড়ে যেতে শুরু করলে অ্যাপল ওয়াচ স্বয়ংক্রিয়ভাবে জরুরি সেবার নম্বরে কল করতে পারে।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন