বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজেদের ‘শান্তিকামী’ ভাবমূর্তি বজায় রেখেছে তালেবান, বারবার বলতে চেয়েছে তারা বদলে গেছে। তালেবান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ, সুহাইল শাহিন ও মুহাম্মাদ নাইম টুইটারে ক্রমাগত পোস্ট করে আফগানদের আশ্বস্ত করেছেন। সে টুইটগুলো হাজারোবার শেয়ার করাও হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তালেবান-প্রশিক্ষিত নাগরিক সাংবাদিকদের ভিডিও পোস্ট করতে দেখা গেছে। সেখানে আফগানদের মুখে তালেবানের প্রশংসা ছিল। তালেবানের দাবির সত্যতা নিশ্চিত করেছে সে ভিডিওগুলো। এতে আর যা হোক, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন আদায় সহজ হয়ে উঠতে পারে।

তালেবান আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নিলে কাবুলে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি দেখা দেয়। তালেবান সে সময় হোয়াটসঅ্যাপে হেল্পলাইন নম্বর চালু করে। যেকোনো প্রয়োজনে আফগানদের তালেবানের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়। কেউ যোগাযোগ করে সাহায্য পেয়েছে কি না, বলা মুশকিল। তবে সেই এক পদক্ষেপে নিজেদের ইতিবাচক হিসেবে প্রমাণ করতে পেরেছে তালেবান। ফেসবুক অবশ্য সে নম্বরগুলো পরে বন্ধ করে দিয়েছে।

তালেবানের ডিজিটাল প্রযুক্তি গ্রহণের প্রথম উদাহরণগুলোর একটি ২০০৫-০৬ সালের দিকে সংগঠনটির ‘আল এমারাহ’ নামের ওয়েবসাইট চালু। ২০১৬ সালে পশতু ভাষায় একই নামের অ্যাপ ছাড়ে গুগল প্লে স্টোরে।

আফগানিস্তানে প্রথম মেয়াদে এসে ইন্টারনেট বন্ধ করে দিয়েছিল যে তালেবান, সেই ইন্টারনেট ব্যবহার করেই গ্রহণযোগ্যতা অর্জনের চেষ্টা করছে তারা। নবগঠিত সরকার কীভাবে প্রযুক্তি ব্যবহার করে, এখন সেটাই দেখার বিষয়।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন