default-image

গুগলের কাছ থেকে লেনোভোর হাতে যাচ্ছে মটোরোলা মোবিলিটি আর অন্যদিকে মাইক্রোসফটের অধীনে যাচ্ছে নকিয়া। স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো এখন উন্নত ফিচার সমৃদ্ধ সাশ্রয়ী স্মার্টফোনের দিকে ঝুঁকছে।

মার্কিন বাজার বিশ্লেষকেরা জানিয়েছেন, মটোরোলা মোবিলিটি কিনে নেওয়ার প্রভাব পড়বে স্মার্টফোনের বাজারে। সবচেয়ে লাভবান হবেন ক্রেতারা। কমে যাবে স্মার্টফোনের দাম। সম্প্রতি ইকোনোমিকটাইমস ব্যুরোর এক প্রতিবেদনেও এ তথ্য উঠে এসেছে।

বাজার গবেষকেরা জানিয়েছেন, লেনোভোর মটোরোলা মোবিলিটি কিনে নেওয়ার ফলে এশিয়ার বাজারে মাইক্রোম্যাক্স, নকিয়া, অ্যাপল ও বিভিন্ন চীনা ব্র্যান্ডের স্মার্টফোনগুলোর দামে প্রভাব পড়বে। উপমহাদেশের বাজারে দক্ষিণ কোরিয়ার স্মার্টফোন নির্মাতা হিসেবে স্যামসাং জনপ্রিয়তা পেয়েছে। মটোরোলা কিনে নেওয়ার ফলে লেনোভো যদি এশিয়ার দেশগুলোতে সাশ্রয়ী দামের স্মার্টফোন উন্মুক্ত করে তবে স্যামসাংয়ের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দাঁড়াতে সক্ষম হবে।

লেনোভো ইন্ডিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক অমর বাবু জানিয়েছেন, আমাদের কম্পিউটারের বাজারে শীর্ষস্থানে থাকার পরিকল্পনা ছিল।এখন মটোরোলা কিনে নেওয়ার পর এর পেটেন্ট ও প্রযুক্তি দক্ষতা কাজে লাগিয়ে স্মার্টফোন বাজারেও শীর্ষস্থানে আসা সম্ভব।

লেনোভোর এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, চীন থেকে শক্তিশালী ব্র্যান্ড হিসেবে উঠে এসেছে লেনোভো। কম্পিউটার নির্মাতা পরিচয়ের পাশাপাশি লেনেভো স্মার্টফোন নির্মাতার পরিচয়ও দাঁড় করিয়ে ফেলেছে। বর্তমানে বিশ্বের দ্রুত বর্ধনশীল স্মার্টফোন বাজার হিসেবে চীন ও ভারতকে ধরা হয়। এই দুটি বাজার দখল করতে লেনোভো মটোরোলাকে কাজে লাগাবে।

বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইডিসির তথ্য অনুযায়ী, উপমহাদেশের দেশগুলোতে অ্যান্ড্রয়েডনির্ভর স্মার্টফোন হিসেবে স্যামসাং, সনি, মাইক্রোম্যাক্স, কার্বন প্রভৃতি ব্র্যান্ড জনপ্রিয় হয়েছে। মটোরোলা কিনে নেওয়ার ফলে লেনোভো এখন মটোরোলার বিশেষ ফিচার সমৃদ্ধ সাশ্রয়ী দামের স্মার্টফোন বাজারে আনতে সক্ষম হবে। লেনোভো যদি সাশ্রয়ী দামের স্মার্টফোন বাজারে ছাড়ে তখন প্রতিযোগিতার খাতিরে অন্যান্য স্মার্টফোনের দামও কমে আসতে বাধ্য হবে বলে মনে করছেন বাজার বিশ্লেষকেরা।

অমর বাবু আরও জানিয়েছেন, চীনের বাজারে দ্রুত জনপ্রিয় হচ্ছে লেনোভো স্মার্টফোন। বাজারে ৪০টিরও বেশি মডেল রয়েছে লেনোভোর। মটোরোলা কেনার পরে উপমহাদেশের বাজার উপযোগী সঠিক মডেল ও ফিচার-সমৃদ্ধ স্মার্টফোন আনতে কাজ করবে লেনোভো। মটোরোলা কেনার পর লেনোভোর সেই সুযোগ আরও বাড়ছে।

আইডিসির গবেষক মানসী যাদবের মতে, স্মার্টফোনের বাজারে সাত হাজার টাকা থেকে ১৫ হাজার টাকার মধ্যে স্মার্টফোন ছাড়তে পারবে লেনোভো। আগামী দুই থেকে তিন বছরের মধ্যেই কম দামের স্মার্টফোন বাজারে পাওয়া সম্ভব হতে পারে।

২৯০ কোটি মার্কিন ডলারে মটোরোলা মোবিলিটি কেনার পেছনে বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, এখন স্মার্টফোন ব্যবসায় আরও বেশি মনোযোগী হবে লেনোভো।
আইডিসির সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী, ২০১৩ সালের শীর্ষ দশ স্মার্টফোন বিক্রেতার মধ্যে পঞ্চম স্থানে ছিল লেনোভো। তালিকার শীর্ষ চারে থাকা স্যামসাং, অ্যাপল, হুয়াউয়ে, এলজির সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতেই মটোরোলা কিনে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে লেনোভো। এদিকে, বর্তমানে বাজারে কম্পিউটার বিক্রি কমে যাওয়ায় চিন্তার মুখে পড়েছে লেনোভো। তাই কম্পিউটারের পাশাপাশি মুঠোফোন ব্যবসা আরও বেশি জোর দেবে চীনের এই প্রতিষ্ঠানটি। মটোরোলা মোবিলিটি কেনার পর বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম স্মার্টফোন নির্মাতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে লেনোভো। প্রথম দুটি অবস্থান স্যামসাং ও অ্যাপলের।

লেনোভোর মটোরোলা চুক্তিটিকে বাজার-গবেষকেরা ইতিবাচকভাবে দেখছেন। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান স্ট্র্যাটেজি অ্যানালাইটিকসের গবেষকেরা জানিয়েছেন, আর্থিক দিক বিবেচনায় লেনোভো একটি ভালো পদক্ষেপ নিয়েছে। এ পদক্ষেপের ফলে চীনের স্মার্টফোন নির্মাতা হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র এবং দ্রুত বর্ধনশীল স্মার্টফোনের বাজার লাতিন আমেরিকায় ব্যবসা প্রসারেরও সুযোগ বাড়বে প্রতিষ্ঠানটির।

default-image



মাইক্রোসফট-নকিয়ার উদ্যোগ
কম দামের স্মার্টফোন বাজারে আনতে লেনোভোর পাশাপাশি কাজ করবে মাইক্রোসফট। বাজার বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, মাইক্রোসফট-নকিয়ার উদ্যোগের ফলে আগামী দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে উইন্ডোজনির্ভর মুঠোফোন সেটের দামও কমে যেতে পারে। নকিয়ার মুঠোফোন ব্যবসা মাইক্রোসফটের অধীনে চলে আসার পর এন্ট্রি লেভেলের স্মার্টফোনের দামে তার প্রভাব পড়তে পারে বলে আশা করছেন মাইক্রোসফট ইন্ডিয়া অপারেটর চ্যানেল গ্রুপ পরিচালক শার্লিন থায়িল।

ইকোনমিক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে শার্লিন জানিয়েছেন, নকিয়া ও মাইক্রোসফটের চুক্তির ফলে মুঠোফোন ক্রেতারা ভবিষ্যতে কম দামের হ্যান্ডসেটের আশা করতে পারেন। ফিচার ফোন ও এন্ট্রি লেভেল স্মার্টফোনে ক্রেতাদের আগ্রহ বাড়াতে মাইক্রোসফট উদ্যোগ নেবে বলে মনে করেন তিনি।

শার্লিন জানান, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে মুঠোফোনের দাম কমে আসবে। দাম কমানোর বিষয়টি পর্যালোচনা করবে মাইক্রোসফট। ফিচার ফোন থেকে গ্রাহক যাতে আরও বেশি স্মার্টফোন মুখাপেক্ষী হন এবং বেশি করে অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করেন, এজন্য মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমনির্ভর স্মার্টফোনের দামের বিষয়টি খেয়াল রাখবে বিশ্বের বৃহত্তম সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি।


নকিয়ার এন্ট্রি লেভেলের আশা সিরিজের হ্যান্ডসেট ও সাশ্রয়ী হ্যান্ডসেটগুলোর পরিবর্তে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমনির্ভর সাশ্রয়ী স্মার্টফোন বাজারে আনার পরিকল্পনা নিয়েও কাজ করছে মাইক্রোসফট।
থ্রি জি নেটওয়ার্ক বিস্তৃত হওয়ায় এখন গ্রাহকরা থ্রিজি সুবিধার স্মার্টফোনে ঝুঁকছেন। তাই থ্রিজি সুবিধার সাশ্রয়ী স্মার্টফোন বাজারে আনতে কাজ করবে মাইক্রোসফট।
শার্লিন জানান, বর্তমানে নকিয়া ও মাইক্রোসফট বাজার বিশ্লেষণ ও গ্রাহকদের চাহিদা পর্যালোচনা করে নতুন স্মার্টফোন তৈরিতে কাজ করছে।

২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ৭০০ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয়ে নকিয়ার মোবাইল ফোন ব্যবসা ও পেটেন্ট লাইসেন্স কিনে নেওয়ার কথা জানিয়েছিল। চলতি বছরের মার্চ মাসের মধ্যেই নকিয়ার মুঠোফোন ইউনিট পুরোপুরি মাইক্রোসফটের অধীনে চলে আসবে।

মাইক্রোসফটের পরিকল্পনা সম্পর্কে শার্লিন জানান, বর্তমানে শুধু সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য নির্মাতা ও পণ্য বিষয়ক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবেও পরিচয় দাঁড় করাতে সচেষ্ট মাইক্রোসফট। সব পণ্যের জন্য একই অপারেটিং সিস্টেম—এমন নীতিতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে মাইক্রোসফট।

default-image

শাওমির উদ্যোগ
কম দামে দক্ষিণ এশিয়ার মানুষের হাতে স্মার্টফোন পৌঁছে দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে চীনের আরেকটি স্মার্টফোন নির্মাতাপ্রতিষ্ঠান শাওমি। মাত্র ৫০ মার্কিন ডলার বা প্রায় চার হাজার টাকার মধ্যে উন্নত স্মার্টফোন বিক্রির পরিকল্পনা করছে প্রতিষ্ঠানটি। চীনের বাজারে মার্কিন প্রতিষ্ঠান অ্যাপলের তৈরি প্রযুক্তিপণ্যের চাহিদা বেশি। তবে শাওমি স্মার্টফোন বিক্রির দিক থেকে অ্যাপলকে ছাড়িয়ে যাওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। চলতি বছর চার কোটি ইউনিট স্মার্টফোন বিক্রি করতে চায় শাওমি কর্তৃপক্ষ।

অবশ্য, কম দামের স্মার্টফোন তৈরি করে এর মধ্যেই চীনের বাজারে অন্যতম স্মার্টফোন নির্মাতার পরিচিতি জুটেছে শাওমির। তাদের দাবি, ২০১২ সালে ৭০ লাখ, ২০১৩ সালে এক কোটি ৯০ লাখ ইউনিট স্মার্টফোন বিক্রি করেছে।

শাওমির তৈরি স্মার্টফোনের নতুন বাজার তৈরির পরিকল্পনাও করেছে শাওমি কর্তৃপক্ষ। শাওমির সহ-প্রতিষ্ঠাতা লেই জুন জানিয়েছেন, তাঁরা এ বছর সাশ্রয়ী দামের আরও বেশি স্মার্টফোন বিক্রি করতে চান।

সম্প্রতি গুগলের নির্বাহী কর্মকর্তার একটি পদ ছেড়ে শাওমির বিপণন বিভাগে যোগ দিয়েছেন হুগো বাররা। তিনি জানিয়েছেন, দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে শাওমি বাজার সম্প্রসারণের পরিকল্পনা করেছে।

শাওমি কর্তৃপক্ষের দাবি, বর্তমানে অ্যাপলের তৈরি ‘আইফোন সি’কে সাশ্রয়ী দামের স্মার্টফোন বলা হলেও এর দাম ৫৪৯ ডলার। এ ছাড়াও নকিয়া, মটোরোলা, এইচটিসির কমদামের স্মার্টফোন রয়েছে বলে দাবি করলেও কোনো স্মার্টফোনই ৫০ ডলারের কম দামে পাওয়া যায় না। বাজারে এই সাশ্রয়ী দামের স্মার্টফোনের চাহিদা রয়েছে। শাওমি এ চাহিদা পূরণ করতে কাজ করবে।

বিজ্ঞাপন
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন