default-image

ফেসবুকের কর্মীদের অভ্যন্তরীণ বার্তা বোর্ডে রাজনীতি, বর্ণগত বিচার বা মহামারি নিয়ে সংঘর্ষ রোধে কর্মক্ষেত্রের নীতিমালা হালনাগাদ করা হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ফেসবুকের পক্ষ থেকে অভ্যন্তরীণ নীতিমালা পরিবর্তনের বিষয়টি জানানো হয়। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ সম্প্রতি কর্মীদের সঙ্গে প্রশ্নোত্তরের এক আয়োজনে এ পদক্ষেপের বিষয়ে আলোচনা করেন।

এএফপিকে ফেসবুকের মুখপাত্র জো ওসবর্ন বলেছেন, আমরা কর্মীদের কাছ থেকে জেনেছি যে তাঁরা তাঁদের কাজের ফিডে অপ্রত্যাশিতভাবে সামাজিক ও রাজনৈতিক বিষয়ে বিতর্ক করার চেয়ে বিকল্প চান। সাংস্কৃতিক শ্রদ্ধা ও অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করার জন্য কর্মী নীতি এবং কাজের সরঞ্জাম হালনাগাদ করা হচ্ছে।

ওসবর্ন বলেন, ফেসবুক তাদের নিপীড়ন নীতিমালা আরও শক্ত করছে যাতে সংখ্যালঘু কোনো কর্মী কোনো প্রতিকূল পরিবেশের মুখোমুখি না হন।

ফেসবুকের পক্ষ থেকে জানানো, তাদের ওয়ার্কপ্লেসের অভ্যন্তরীণ মেসেজ বোর্ডের কোন অংশে বিতর্কিত রাজনৈতিক বা সামাজিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা করা যাবে এবং তা সাবধানতার সঙ্গে সম্পাদন করা হবে, তা ঠিক করা হয়েছে। ফেসবুকের ওয়ার্কপ্লেসে আলোচনার বিষয়বস্তু হিসেবে ভুল তথ্য, ঘৃণা, বা বক্তৃতা ছড়িয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে ফেসবুকের ভূমিকা ছাড়াও কর্মীদের ব্যক্তিগত মতামত থাকতে পারে এমন বিষয় যুক্ত করা হয়েছে।

ফেসবুক তাদের নিপীড়ন নীতিমালা আরও শক্ত করছে যাতে সংখ্যালঘু কোনো কর্মী কোনো প্রতিকূল পরিবেশের মুখোমুখি না হন।
জো ওসবর্ন , ফেসবুক মুখপাত্র
বিজ্ঞাপন

ওসবার্নের মতে, পেশাদার থেকেও ফেসবুক নাগরিক ও কাজের ক্ষেত্রে উন্মুক্ত বিতর্ক প্রচার করার উপায় অনুসন্ধান করছে। ওই লক্ষ্য ফেসবুক কীভাবে অর্জন করবে, তা খতিয়ে দেখা হবে।

সম্প্রতি মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আপত্তিজনক পোস্টের অভিযোগ ওঠায় গুগল কর্মীদের অভ্যন্তরীণ বার্তা বোর্ড কথোপকথন পরিচালনায় আরও ন্যায়সংগত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। এ সূত্র ধরেই ফেসবুক তাদের নীতিমালায় পরিবর্তন আনল।

করোনা পরিস্থিতিতে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো কর্মীদের বাড়িতে বসে কাজের সুযোগ দিচ্ছে। এতে অভ্যন্তরীণ বার্তা বোর্ডের ব্যবহার বেড়ে গেছে।

বছরখানেক আগে গুগল কর্মীদের জন্য কর্মক্ষেত্রের নীতিমালা হালনাগাদ করে তাঁদের দায়িত্বশীল, সহযোগী ও অভ্যন্তরীণ বার্তা আদান–প্রদানে চিন্তাশীল হতে বলে।

নীতিমালায় বলা হয়, আমাদের প্রাথমিক দায়িত্ব হচ্ছে যে কাজের জন্য আমাদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে তা সম্পন্ন করা। কাজসংশ্লিষ্ট নয় এমন কাজে বিতর্ক করে সময়ক্ষেপণ করবেন না। ওই বোর্ড বা ফোরামে যদি নীতিমালা লঙ্ঘন করা হয় তবে ব্যবস্থাপকেরা এর জন্য নানা রকম পদক্ষেপ নিতে পারেন। গুগলে এখন সম্পাদনার পরিসর আরও বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছে সিএনবিসি।

মন্তব্য পড়ুন 0