default-image

একই সঙ্গে শক্তপোক্ত কিন্তু ওজনে হালকা-পাতলা হওয়ায় কোনো কিছু তৈরিতে কার্বন ফাইবার চমৎকার উপাদান। তবে স্মার্টফোনে এত দিন ব্যবহারের উপায় ছিল না। কারণ, বেতার তরঙ্গ আদান–প্রদানে বাধা তৈরি করে কার্বন ফাইবার।

কার্বন মোবাইল নামের এক জার্মান প্রতিষ্ঠান সে বাধা পেরোনোর দাবি করেছে। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, কার্বন ফাইবার মনোককের বিশ্বের প্রথম স্মার্টফোন হলো ‘কার্বন ১ এমকে টু’। অর্থাৎ বহিরাবরণটি কার্বন ফাইবারের তৈরি। এতে স্মার্টফোনটি বেশ হালকা (১২৫ গ্রাম) এবং পাতলা (৬.৩ মিলিমিটার পুরু) বলে জানানো হয়েছে।

চার বছর ধরে ‘হাইব্রিড রেডিও এনাবলড কম্পোজিট ম্যাটেরিয়াল’ প্রযুক্তি তৈরি করেছে কার্বন মোবাইল। এতে কার্বন ফাইবারের সঙ্গে যৌগিক উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে বলেই বেতার তরঙ্গ যাওয়া–আসা করতে পারে। বড়জোর ৫ শতাংশ উপাদান তৈরিতে প্লাস্টিক ব্যবহার করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
default-image

মনোকক ধাঁচের নকশা হওয়ায় ভেতরে আলাদা কোনো ফ্রেম নেই। ভেতরের যন্ত্রাংশ সরাসরি কার্বন ফাইবারের সঙ্গে যুক্ত। আরেকটি ব্যাপার হলো, প্রতিটি কার্বন মোবাইল ফোন খুলে সেগুলো আবার কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।

কার্বন ১ এমকে টু স্মার্টফোনে ৬ ইঞ্চি অ্যামোলেড ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে। স্মার্টফোনটিতে হেলিও পি৯০ চিপসেটের সঙ্গে ৮ গিগাবাইট র‍্যাম ও ২৫৬ গিগাবাইট স্টোরেজ থাকবে। ব্যাটারিটি ৩ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ারের। পেছনে দুটি ১৬ মেগাপিক্সেলের এবং সামনে ২০ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা আছে।

শুরুতে অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেম থাকলেও পরবর্তী সময়ে ১১ নম্বর সংস্করণে হালনাগাদ করা যাবে। সে সঙ্গে আগামী দুই বছর পর্যন্ত সফটওয়্যার এবং নিরাপত্তা হালনাগাদ সরবরাহ করবে কার্বন মোবাইল। দাম একদম কম নয়, ৮০০ ইউরো।

সূত্র: জিএসএম অ্যারেনা

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন