বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি ফাইজার এর আগে বলেছিল তারা অক্টোবরের মধ্যেই করোনার টিকার ফল জেনে যাবে। কিন্তু এখন তারা আশা প্রকাশ করে বলেছে, এ বছরের মধ্যে তাদের টিকার ফল জানা যেতে পারে। প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা আশা প্রকাশ করে বলেছেন, যদি টিকা পরীক্ষা ঠিকঠাক মতো চলে এবং টিকার অনুমোদন পায় তবে যুক্তরাষ্ট্রে ৪ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহ করতে পারবে তারা। ফাইজারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) অ্যালবার্ট বোরলা বলেছেন, টিকা অনুমোদন পাওয়ার বিষয়টি কয়েকটি বিষয়ের ওপর নির্ভর করছে। এর মধ্যে রয়েছে টিকার কার্যকারিতা জানার বিষয়টি।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে বোরলা বলেছেন, ‘আমরা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে গেছি। যদি সবকিছু ঠিকমতো চলে আমরা প্রাথমিক ডোজ সরবরাহ করার জন্য প্রস্তুত থাকব।’

বোরলা এ বছরের মধ্যেই করোনার টিকা সরবরাহের সম্ভাবনা নিয়ে পরিমিত আশাবাদ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, টিকার কার্যকারিতা মূল্যায়নের ক্ষেত্রে এখনো ফাইজার মূল মানদণ্ডে পৌঁছেনি। তারা নভেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহে টিকাটির জরুরি অনুমোদনের জন্য আবেদন করার কথা ভাবছেন।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফাইজারের পাশাপাশি করোনার টিকা নিয়ে আশার খবর দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের মডার্না। তাদের এমআরএনএ-১২৭৩ টিকাটির ফলাফল আগামী মাসে জানাতে পারবে বলে আশা করছে। ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, যদি টিকাটির ইতিবাচক ফল পাওয়া যায় তবে ডিসেম্বরের শুরুতে এর জরুরি অনুমোদন মিলতে পারে। বছরের শেষ নাগাদ তাদের পরীক্ষামূলক টিকাটির ২ কোটি ডোজ উৎপাদনের দিকে নজর রাখছে মডার্না। দ্রুত অনুমোদন পেতে মডার্না ইতিমধ্যে তাদের টিকাটির অনুমোদনের জন্য যুক্তরাজ্যের নিয়ন্ত্রকদের সঙ্গে স্বাধীন মূল্যায়ন শুরু করেছে।

এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, কোভিড-১৯ টিকা নিয়ে যেসব হালনাগাদ সুখবর পাওয়া যাচ্ছে তাকে স্বাগত জানাচ্ছে সংস্থাটি। তবে টিকাটি ব্যাপকভাবে পাওয়া ক্ষেত্রে সময় লাগতে পারে বলেও সতর্ক করেছে সংস্থাটি।

অ্যাস্ট্রোজেনেকার টিকার সর্বশেষ অবস্থা প্রসঙ্গে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক কর্মকর্তা বলেছেন, করোনায় আক্রান্ত বয়স্কদের প্রতিরোধী ক্ষমতা কম শক্তিশালী। আশা করি ভবিষ্যৎ টিকাগুলো নিরাপদ ও কার্যকর হবে এবং উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা এসব বয়স্ক মানুষকে সুরক্ষা দিতে সক্ষম হবে।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন