default-image

এনক্রিপশন প্রযুক্তি-সুবিধার মেসেজিং অ্যাপ টেলিগ্রামে তিন দিনে আড়াই কোটি ব্যবহারকারী বাড়ার রেকর্ড হয়েছে। মঙ্গলবার টেলিগ্রাম অ্যাপটির রাশিয়ান প্রতিষ্ঠাতা পাভেল দুরভ (৩৬) এ কথা জানান। হোয়াটসঅ্যাপের নীতিমালা পরিবর্তনের ঘোষণা আসার পর থেকেই টেলিগ্রাম অ্যাপটির ব্যবহার বেড়ে গেছে।

দুরভ তাঁর টেলিগ্রাম চ্যানেলে বলেছেন, জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত টেলিগ্রাম অ্যাপে ৫০ কোটির বেশি সক্রিয় ব্যবহারকারী ছিলেন। তবে গত ৭২ ঘণ্টায় আড়াই কোটি নতুন ব্যবহারকারী টেলিগ্রামে যুক্ত হয়েছেন।

হোয়াটসঅ্যাপ সম্প্রতি  প্রাইভেসি শর্তে পরিবর্তন আনায় তা নিয়ে নেটিজেনদের মধ্যে বিতর্ক সৃষ্টি হয়। ২০০ কোটির বেশি হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারী রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

হোয়াটসঅ্যাপের নতুন শর্ত অনুযায়ী, ব্যবহারকারীদের এখন হোয়াটসঅ্যাপের মালিক প্রতিষ্ঠান ফেসবুককে অধিক তথ্য শেয়ারের অনুমতি দিতে হবে। শর্তে সম্মত না হলে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার বন্ধ করে নিতে হবে।

হোয়াটসঅ্যাপের নাম উল্লেখ না করেই দুরভ বলেন, ‘বিনা মূল্যের সেবা পেতে মানুষ আর তাঁদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা বিসর্জন দিতে রাজি নন।’

হোয়াটসঅ্যাপের নতুন শর্ত ইউরোপের বাইরে ব্যাপক সমালোচনা সৃষ্টি করেছে। ৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নতুন শর্তে সম্মত হওয়ার সময় বেঁধে দিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ।

অন্যদিকে, টেলিগ্রাম বেশ কয়েকটি দেশে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের কয়েকটি দেশ ও ইরানে এটি জনপ্রিয়।

ব্যবহারকারীরা ব্যক্তিগত যোগাযোগ, তথ্য বিনিময় ও খবরের জন্য টেলিগ্রাম ব্যবহার করে থাকেন।

গত মঙ্গলবার দুরভ বলেন, যাঁরা ব্যক্তিগত যোগাযোগের নিরাপদ প্ল্যাটফর্ম খোঁজেন, তাঁরা টেলিগ্রামে এসেছেন। নতুন ব্যবহারকারীদের দায়িত্ব তাঁর দল খুব গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে।

২০১৩ সালে পাভেল ও নিকোলাই দুরভ দুই ভাই টেলিগ্রাম প্রতিষ্ঠা করেন। তাঁরা রাশিয়ার জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ভিকোনটাকটেরও উদ্যোক্তা।

এনক্রিপশন কি কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দিতে তাঁরা অস্বীকৃতি জানানোর কারণে অনেক দেশে টেলিগ্রাম নিষিদ্ধ। রাশিয়াতেও এটি নিষিদ্ধ। গত বছর অবশ্য রাশিয়া এর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার কথা বলেছে।

মন্তব্য করুন