default-image

দর্শকদের ভেতরে ঢোকার সারি এঁকেবেঁকে চলে গেছে অনেক দূর পর্যন্ত। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের ভেতরে যেমন ভিড়, বাইরেও তেমন। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টা থেকেই এমন ভিড় চোখে পড়ে। লোকে লোকারণ্য এ অবস্থা তথ্যপ্রযুক্তির আয়োজন ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৫ ঘিরে। গতকাল ছিল আয়োজনের দ্বিতীয় দিন। ভিড় সত্ত্বেও তথ্যপ্রযুক্তির এ বিশাল প্রদর্শনী নিয়ে মানুষের আগ্রহের কোনো কমতি ছিল না। সবাই সোৎসাহে দীর্ঘ সারিতে দাঁড়িয়ে নিবন্ধন করে মেলায় প্রবেশ করছেন। ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ডিজিটাল সেবা ও কর্মকাণ্ড তুলে ধরছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও তাদের পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেছে। সব ধরনের স্টলের প্রতিই মানুষের আগ্রহ। ওখানেই ডটকমের বুথে সেলফি প্রতিযোগিতায় অনেকেই জিতছেন অ্যান্টি-ভাইরাস সফটওয়্যার কিংবা টি-শার্ট। সম্মেলন কেন্দ্রের বাইরে ভাষাসৈনিক আব্দুল জব্বারের নামে করা অভিজ্ঞতা অঞ্চল (এক্সপেরিয়েন্স জোন) চোখে পড়ল। এখানে মেট্রোরেল, পদ্মা সেতু ও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মডেল রয়েছে। সেগুলো দেখতে দর্শকদের ভিড়ও কম নয়। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার-কৌশল বিভাগের তৈরি সৌরবিদ্যুৎচালিত গাড়ি আছে এখানে, আরও আছে চালকবিহীন খুদে বিমান ড্রোন। গুগলের কার্ডবোর্ড গ্লাস ব্যবহার করে ভার্চুয়াল রিয়্যালিটির অভিজ্ঞতাও পাওয়া যাবে এখানে। ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে এসেছে গুগল বাস। বাসের সামনে দীর্ঘ সারি, সবাই ভেতরে গিয়ে দেখতে চান। কথা বলে জানা গেল, গুগলের নানা স্মার্টফোন অ্যাপ এবং সেবা ব্যবহার করে দেখার সুযোগ আছে। চার দিনের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড শেষ হবে আগামীকাল।

এ আয়োজন প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত খোলা থাকবে।
—মেহেদী হাসান

বিজ্ঞাপন
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন