default-image

জুম প্ল্যাটফর্মে অনলাইন শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেসের সমাপনী পর্ব অনুষ্ঠিত হয়েছে গত রোববার বিকেলে। অনুষ্ঠানটি শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেসের ফেসবুক পেজ থেকে লাইভ সম্প্রচার করা হয়। তিন দিনব্যাপী আয়োজিত বিজ্ঞান কংগ্রেসে সব ধাপ পার হয়ে মোট ২৫৩ জন অংশ নিতে পেরেছে। এদের মধ্যে থেকে মোট ৫২ জনকে বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা হয়। আগে ঘোষণা করা ৫০ হাজার টাকা পুরস্কারকে বাড়িয়ে সর্বমোট ৭০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। এ ছাড়া কংগ্রেসের সেরাদেরকে পেপার অব দ্য কংগ্রেস, পোস্টার অব দ্য কংগ্রেস এবং প্রোজেক্ট অব দ্য কংগ্রেস ঘোষণা করা হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির সহসভাপতি মনির হাসান, বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী এবং অনলাইন শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেসের আহ্বায়ক ড. মুশতাক ইবনে আয়ূব। এ ছাড়া যুক্ত ছিলেন বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ও সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি উপাচার্য ড. পারভীন হাসান।

এবারের কংগ্রেসে ১ হাজার ৩০০ বেশি শিক্ষার্থী অংশহগ্রহণের আবেদন করে। সেখান থেকে বাছাই করা পাঁচ শ শিক্ষার্থীকে অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হয়। এরপর অনলাইনে গবেষণা সাবমিশন, মক টেস্ট ও অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে গবেষণা উপস্থাপন করার জন্য মোট ২৫৩ জন অংশগ্রহণের সুযোগ পায়।

১৭ ও ১৮ জুলাই শিক্ষার্থীরা অনলাইন কংগ্রেসে তাদের বৈজ্ঞানিক গবেষণা উপস্থাপন করে। এখানে দেশ-বিদেশ থেকে সংযুক্ত ৩১ জন গবেষক পর্যায়ক্রমে উপস্থিত হয়ে গবেষণাগুলো মূল্যায়ন করেছেন। এ বছর অনলাইন শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেস ২০২০ যৌথভাবে আয়োজন করেছে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি, বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশন এবং জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর।

রোববার সকালে দেশি-বিদেশি বিজ্ঞানী, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের যৌথ অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় ‘যৌথ কংগ্রেস’। এখানে শিক্ষার্থীরা গবেষকদের সঙ্গে বিজ্ঞান ও গবেষণার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিনিময় করে। যৌথ কংগ্রেসে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল। তিনি শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ধরনের গবেষণায় উৎসাহ দেন। একই সঙ্গে আয়োজনের সঙ্গে যুক্ত সবাইকে তিনি ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘আমি যখন স্কুলে পড়তাম, তখন সবাইকে চমকে দেওয়ার জন্য গবেষণা শুরু করি। বিজ্ঞান ভালোভাবে বোঝার জন্য তিনি কোচিং ও প্রাইভেটে না গিয়ে নিজে নিজে শিক্ষার্থীদের শেখার জন্য উৎসাহ দেন।’

যৌথ কংগ্রেসে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. জেবা ইসলাম সেরাজ। তিনি কোভিড পরিস্থিতিতে অনলাইনে এমন আয়োজন করার জন্য আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান। এ ছাড়া তিনি তাঁর বর্তমান গবেষণা সম্পর্কে জানান। তিন গবেষণা করছেন জিন প্রতিস্থাপন নিয়ে। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন একই বিভাগের অধ্যাপক ড. হাসিনা খান। তিনি পাটের জিনোম নিয়ে তাঁর গবেষণার আগ্রহের কারণ শিক্ষার্থীদের সামনে তুলে ধরেন।

default-image

চাইল্ড হেলথ রিসার্চ ফাউন্ডেশনের অণুজীববিজ্ঞানী ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দ্য পোলিও ট্রানজিশন ইনডিপেনডেন্ট মনিটরিং বোর্ডের সদস্য ড. সেঁজুতি সাহা শিক্ষার্থীদের গবেষণা সংস্কৃতির সঙ্গে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান। স্কুলে বৈজ্ঞানিক পেপার রিভিউ এবং প্রোজেক্ট তৈরি করার জন্য শিক্ষার্থীদের নির্দেশনা দেন তিনি।
আরও উপস্থিত ছিলেন ইউনিভার্সিটি অব আলাবামার কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. রাগিব হাসান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালইয়ের ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. এম নুরুজ্জামান খান, ইউনিভার্সিটি অব আরাকানসাসের ফোর্ট স্মিথের সহকারী অধ্যাপক ড. মো. আবদুল হালিম, ইন্টারক্লাউড লিমিটেডের প্রধান কারিগরি কর্মকর্তা (সিটিও) তানভীর এহসানুর রহমান, কলেজ অব মেডিসিন দুবাইয়ের হিউম্যান জেনেটিকস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ডাফিল উদ্দিন, আইবিএম থমাস জে ওয়াটসন সেন্টার নিউইয়র্ক, যুক্তরাষ্ট্রের গবেষক ড. ওমর শেহাব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালইয়ের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ও বায়টেকনোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মুশতাক ইবনে আয়ূব এবং আমাজনের অ্যাপ্লাইড সায়েন্টিস্ট ড. সুদীপ্ত কর। যৌথ কংগ্রেসে সবার আলোচনার ভিত্তিতে কয়েকটি ঘোষণা তৈরি করা হয়। অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থী ও গবেষকদের সম্মতির ভিত্তিতে ঘোষণাগুলো পাস করা হয়।

এরপর শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেস উপলক্ষে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরে একটি লাইভ ভার্চ্যুয়াল ভিজিটের ব্যবস্থা করা হয়। বেলা তিনটা থেকে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির একাডেমিক টিমের সহযোগিতায় ফেসবুক লাইভের মাধ্যমে ভার্চ্যুয়াল ভিজিট বাস্তবায়ন করা হয়। এই ফেসবুক লাইভ ভ্রমণে দর্শকদের জন্য জাদুঘরে থাকা বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক পরীক্ষণ করে দেখানো হয়। আয়োজনটি বিজ্ঞান কংগ্রেসের ফেসবুক পেজ থেকে লাইভ সম্প্রচার করা হয়। পরীক্ষণ করে দেখায় বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির স্বেচ্ছাসেবকেরা ও বিজ্ঞান জাদুঘরের কর্মকর্তারা।

এরপর সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এম জাহিদ হাসান কংগ্রেসে খুদে বিজ্ঞানীদের সঙ্গে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। তিনি বিজ্ঞান গবেষণার সার্বিক অবস্থা ও সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করেন। এটিও লাইভ সম্প্রচার করা হয় বিজ্ঞান কংগ্রেসের ফেসবুক পেজ থেকে।

default-image

দেশের স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিজ্ঞানশিক্ষা জনপ্রিয় করে তোলা, শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞানীদের মতো করে চিন্তা শেখানো লক্ষ্য নিয়ে এ বছর সপ্তমবারের মতো আয়োজন করা হলো শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেস। কোভিড টেনশনের কারণে বিশ্ব পরিস্থিতি পরিবর্তিত হয় এ বছর পুরো প্রোগ্রামটি অনলাইনে আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি স্বেচ্ছাসেবকেরা গত এক মাস অক্লান্ত পরিশ্রম করে অনলাইনে এই প্রোগ্রামটি বাস্তবায়ন করে। এ বছরের অনলাইন বিজ্ঞান কংগ্রেসের প্রতিটি অনুষ্ঠানের ভিডিও দেখা যাবে বিজ্ঞান কংগ্রেসের ফেসবুক পেজ fb.com/cscongressbd-এই লিংকে।

গত ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসজুড়ে কংগ্রেসের প্রস্তুতির লক্ষ্যে সারা দেশে আয়োজিত হয়েছে প্রস্তুতিমূলক কর্মশালা ও কুদরাত-এ-খুদা সায়েন্স ক্যাম্প। প্রস্তুতিমূলক কর্মশালায় বিজ্ঞান কংগ্রেসে অংশ নেওয়ার নিয়মাবলি শেখানো হয়েছে। সেই সঙ্গে তিন দিনের কুদরাত-এ-খুদা সায়েন্স ক্যাম্প ও মেঘনাদ সাহা বিজ্ঞান কর্মশালায় বৈজ্ঞানিক কার্যপদ্ধতিসহ প্রজেক্ট, পোস্টার ও পেপারের বিস্তারিত শেখানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি

বিজ্ঞাপন
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন