default-image

প্রযুক্তিতে নারীর অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে। তাঁদের এগিয়ে আসতে হবে বাধা ডিঙিয়ে। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া চার দিনের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড মেলার প্রথম দিনে অনুষ্ঠিত ‘টেক উইম্যান’ নামের সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন বক্তারা।
সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কুইন্স ব্যুরোর ডিসট্রিক্ট লিডার উমা সেন গুপ্তা, নারী উদ্যোক্তা ফেডারেশনের চেয়ারপারসন রোকেয়া আফজাল রহমান, হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরাসহ আরও অনেকে।
উমা সেন গুপ্তা বলেন, ‘ছেলেদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে শিখলে মেয়েরা অবশ্যই এগিয়ে যাবে। বাংলাদেশে ইতিমধ্যেই এই ধারা সৃষ্টি হয়েছে। একটি মেয়েকে সফল হতে হলে প্রযুক্তি শিক্ষা, সমর্থন এবং সুযোগ এই তিনটি বিষয় নিশ্চিত করতে হবে। সুযোগ পাওয়ার পর অনেক মেয়ের পরিবার এবং পরিবেশের কারণে বেশিদূর যেতে পারেন না। এ ক্ষেত্রে প্রবল ইচ্ছাশক্তি দিয়ে বাধা ডিঙিয়ে যেতে হকে তাঁকে।’
রোকেয়া রহমান বলেন, ‘কর্মক্ষেত্রে সফল হতে হলে নারীদের সমাজ ও পরিবারের সাহায্য বেশি দরকার।’
হোসনে আরা বেগম বলেন, ‘আমার মা খুব বেশি লেখাপড়া করেননি। সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়েছিলেন তিনি। কিন্তু তিনি জানতেন লেখাপড়ার মূল্য। সন্তানদের তিনি লেখাপড়া করিয়েছেন। মায়ের এই সমর্থনের জন্যই তিনি এগিয়ে আসতে পেরেছেন।’
তিনি আরও বলেন, ‘নারীরা যেন আইটিতে এগিয়ে যেতে পারেন, তাই নারীদের বিভিন্ন আউটসোর্সিং প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছে সরকার। ঘরে বসে কাজ করে আয় করার সুযোগ বেড়েছে।’
তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ এই সম্মেলনে বলেন, দেশের অর্ধেকই নারী। তাঁদের আর্থিক কর্মকাণ্ডের মধ্যে আনলে দেশ এগিয়ে যাবে। নারীর ক্ষমতায়ন জরুরি।
ফিউচার ইজ হিয়ার- স্লোগানে শুরু হওয়া এই মেলার পর্দা নামবে ১২ ফেব্রুয়ারি।

বিজ্ঞাপন
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন