বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, এক হাজার জিবিপিএস সক্ষমতার নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে তাঁরা উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। এ ছাড়া প্রতিটি জেলা ৩০০ জিবিপিএস ও উপজেলা ১০০ জিবিপিএস সক্ষমতার অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্কে সংযুক্ত হবে বলে জানান। তিনি আরও বলেন, ফাইভ-জি প্রযুক্তির সত্যিকারের সেবা নির্ভর করবে অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্কের সক্ষমতার ওপর। বিটিসিএল এমন একটি শক্তিশালী অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে যাচ্ছে, যা চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের যুগে বাংলাদেশকে উন্নত বিশ্বের কাতারে রাখবে।

বিটিসিএল জানিয়েছে, সারা দেশে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইডথ বিতরণে ১২টি ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ (নিক্স) স্থাপন করা হবে। ফাইভ–জি প্রযুক্তির জন্য নেটওয়ার্ক উন্নয়নে জন্য সারা দেশকে ৮টি অঞ্চলে ভাগ করে ১ হাজার জিবিপিএস, ৮০০ জিবিপিএস ও ৬০০ জিবিপিএস নেটওয়ার্ক স্থাপন করা হবে। অঞ্চলগুলো হচ্ছে চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, সিলেট, ময়মনসিংহ, বগুড়া, রংপুর, খুলনা ও বরিশাল।

কর্মশালায় বিটিসিএলের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) মীর মোহাম্মদ মোরশেদের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য দেন বিটিসিএলের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) এ কে এম হাবিবুর রহমান, এমওটিএন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আসাদুজ্জামান চৌধুরী, টিআরএনবির সভাপতি রাশেদ মেহেদী ও সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার দে।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন