বিজ্ঞাপন

হাজার হাজার এক তারকা রিভিউ পাওয়ার পর এমনটা হয়েছে। দুটি প্ল্যাটফর্মেই এক থেকে পাঁচের ভেতর সিংহভাগই এক তারকা রিভিউ। বেশির ভাগ রিভিউয়ের সঙ্গে ফিলিস্তিনিদের কণ্ঠরোধবিষয়ক মন্তব্য জুড়ে দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে আছে হ্যাশট্যাগও (#FreePalestine কিংবা #GazaUnderAttack)।

ফেসবুকও বিষয়টি বেশ গুরুত্ব দিয়েই দেখছে। প্রতিষ্ঠানটির কর্মীদের জন্য এক অভ্যন্তরীণ বার্তার স্ক্রিনশট পেয়েছে এনবিসি নিউজ। সেখানে রিভিউয়ের ব্যাপারটিকে ‘এসইভি-১’ হিসেবে শ্রেণিবদ্ধ করেছে ফেসবুক। ফেসবুকের সেবায় গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা দেখা দিলে এমন নির্দেশক ব্যবহার করে তারা। এসইভি-১ ব্যবহার করে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংকটের সময়। আর সার্ভার ডাউন হয়ে ফেসবুক বন্ধ হয়ে গেলে ব্যবহার করা হয় এসইভি-০।

ফেসবুকের অভ্যন্তরীণ মেসেজ বোর্ডে এক জ্যেষ্ঠ সফটওয়্যার প্রকৌশলী লিখেছেন, ‘ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের সাম্প্রতিক সংঘাতের ঘটনায় ফেসবুকের ওপর থেকে ব্যবহারকারীদের বিশ্বাস পড়ে যাচ্ছে। আমাদের ব্যবহারকারীরা মনে করছেন, তাদের পোস্ট আটকে দেওয়া হচ্ছে, কম মানুষের কাছে পৌঁছাচ্ছে এবং শেষমেশ নির্বাক করে দেওয়া হচ্ছে। ফলে আমাদের ব্যবহারকারীরা এক তারকা রিভিউ দিয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন।’

ফাঁস হওয়া স্ক্রিনশট অনুযায়ী, নেতিবাচক পর্যালোচনা সরিয়ে ফেলার জন্য অ্যাপের দুটি প্ল্যাটফর্মের সঙ্গেই যোগাযোগ করেছিল ফেসবুক। তবে অ্যাপল তা মানতে রাজি হয়নি। আর গুগলের সঙ্গে ব্যাপারটি পরিষ্কার নয়।

ফেসবুক, টুইটার এবং অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোর বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের অভিযোগ হলো, তারা ফিলিস্তিনিদের কথা মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে বাধা তৈরি করে থাকে। হয় পোস্ট, নয়তো অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলে। ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের হামাসের মধ্যে চলমান সংঘাতে সে সমস্যা চূড়ায় পৌঁছেছে বলে মানছেন ফিলিস্তিনের ওই সমর্থকেরা।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন