default-image

কয়েক বছর ধরে প্রাইভেসি লঙ্ঘন, ভুয়া খবর ঠেকাতে ব্যর্থতা, তথ্য ফাঁসের মতো নানা সমস্যায় ফেসবুক ঘিরে নানা সমালোচনা হচ্ছে। এতে ফেসবুকের সুনাম নিয়ে টানাটানি বাড়লেও আয় ও ব্যবহারকারীর হার তরতর করে বেড়ে যাচ্ছে। চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিক, অর্থাৎ, জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর—এ তিন মাসে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২৯ শতাংশ আয় বেড়েছে ফেসবুকের।

প্রতিটি শেয়ারের দাম বেড়েছে ২ দশমিক ১২ মার্কিন ডলার। ফেসবুকের রাজস্ব এসেছে ১৭ দশমিক ৬৫২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গত তিন মাসে তাদের মাসিক ব্যবহারকারী ১ দশমিক ৬৫ শতাংশ বেড়ে ২৪৫ কোটিতে পৌঁছে গেছে। বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক, অর্থাৎ, এপ্রিল থেকে জুন মাসে তাদের ব্যবহারকারী বাড়ার হার ছিল ১ দশমিক ৬ শতাংশ। ওই সময় তাদের ব্যবহারকারী ছিল ২৪১ কোটি। বর্তমানে দৈনিক ১৬২ কোটি মানুষ সক্রিয়ভাবে ফেসবুক ব্যবহার করছেন, যা গত প্রান্তিকের তুলনায় ২ শতাংশ বেশি। গত প্রান্তিকে দৈনিক ফেসবুক ব্যবহারকারী ছিলেন ১৫৮ কোটি ৭০ লাখ।

আয়ের দিক হিসাব করলে অনেক বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠানের করা পূর্বাভাস ছাড়িয়ে গেছে ফেসবুক। রেফিনিটিভের এক পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল, ফেসবুক ১৭ দশমিক ৩৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করবে এবং শেয়ারপ্রতি আয় হবে ১ দশমিক ৯১ মার্কিন ডলার।

বাজার গবেষকেরা বলছেন, ফেসবুকের গুরুত্বপূর্ণ বাজার যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও ইউরোপে ২০ লাখ করে ব্যবহারকারী বেড়েছে। এতেই তাদের ব্যবসার প্রবৃদ্ধি অনেকটাই বেড়ে গেছে। এসব বাজারে গত দুই বছরে ফেসবুকের প্রবৃদ্ধি ছিল সামান্য।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলেছে, ২২০ কোটি ব্যবহারকারী প্রতিদিন ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ ও মেসেঞ্জারে ঢোকেন। ২৮০ কোটি ব্যবহারকারী ফেসবুকের অধীনে থাকা কোনো না কোনো অ্যাপ দৈনিক ব্যবহার করছেন। গত প্রান্তিকের তুলনায় যা অনেক বেড়েছে।

বাজার গবেষকেরা বলছেন, বর্তমানে স্ন্যাপচ্যাট ও টিকটকের সঙ্গে প্রতিযোগিতা বেড়েছে ফেসবুকের। তারপরও ফেসবুকের অবস্থান টলাতে পারেনি। তথ্যসূত্র: টেকক্রাঞ্চ

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0