default-image

জনপ্রিয় ডানপন্থী চ্যানেল ওয়ান আমেরিকা নিউজ নেটওয়ার্কের (ওএএন) বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে ইউটিউব। চ্যানেলটি থেকে মার্কিন নির্বাচনে ব্যাপক প্রতারণা ঘটেছে বলে দাবি করা হচ্ছিল। ইউটিউব ওই চ্যানেল সাময়িক বন্ধ করে দিয়ে বলেছে, চ্যানেলটি তাদের নীতিমালা ভঙ্গ করেছে।

কিন্তু মার্কিন নির্বাচন ঘিরে ভুয়া তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে তাদের নিষিদ্ধ করা হয়নি। চ্যানেলটিতে একটি ভুয়া ভিডিও প্রচার করা হয়, যাতে কোভিড-১৯ সারানোর নিশ্চয়তা মিলবে বলে উল্লেখ করা হয়। সে কারণেই চ্যানেলটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলো। নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ইউটিউব কর্তৃপক্ষ বলছে, কোনো চ্যানেলকে নিষিদ্ধ করার জন্য তাদের তিন স্ট্রাইকের নীতিমালা রয়েছে। ইউটিউব ওই চ্যানেলের বিরুদ্ধে একটি স্ট্রাইক জারি করেছে। এর অর্থ, ওএএন এক সপ্তাহ পর্যন্ত নতুন কোনো ভিডিও আপলোড করতে পারবে না। গতকাল মঙ্গলবার ইউটিউবের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এ ব্যবস্থা নেওয়ার ফলে ওই চ্যানেল ইউটিউবের বিজ্ঞাপন থেকে আয় করতে পারবে না।

ইউটিউবের এক বিবৃতিতে বলা হয়, মহামারি শুরুর পর থেকে আমরা কোভিড-১৯ ঘিরে ইউটিউবে ভুয়া তথ্য ছড়ানোর বিষয়টি ঠেকাতে কাজ করেছি। গভীর পর্যালোচনার পরে আমরা ওএনএনের ভিডিওতে স্ট্রাইক দিয়েছি। ওই ভিডিওতে কোভিড-১৯–এর নিশ্চিত সমাধান দাবি করা হয়েছিল।
ভবিষ্যতে ওই চ্যানেল থেকে ওএনএনকে আবার আয় করতে হলে পুনরায় ইউটিউবের কাছে আবেদন করতে হবে।

ইউটিউবে অবশ্য নির্বাচন নিয়ে মিথ্যা দাবি বিষয়ে নীতিমালা নেই। এর আগে ওই চ্যানেলে প্রকাশ করা একটি ভিডিও ইউটিউব সরাতে অস্বীকৃত জানায়। ভিডিওটিতে ট্রাম্প ২০২০ সালের নির্বাচন জিতেছেন বলে দাবি করা হয়েছিল। নির্বাচনের পরের দিন ভিডিওটি আপলোড করা হয়। ওই সময় কোনো সংবাদমাধ্যম আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনের পূর্বাভাসও দেয়নি।

মন্তব্য করুন