বিজ্ঞাপন

জুরংকে যে নিঃসঙ্গ বলা হচ্ছে, তা কিন্তু পুরোপুরি ঠিক নয়। ছবিতে দেখুন, ঠিক ডানে ছয় চাকার রকেট ইঞ্জিনচালিত আরেকটি বাহন দেখা যাচ্ছে। চীনের তিয়ানওয়েন-১ নভোযানের ল্যান্ডার এটি। এতে চড়েই আলতোভাবে মঙ্গলে অবতরণ করে জুরং। দুটোর গায়েই চীনের লাল পতাকা সাঁটা।

শুধু বাহনটির আলাদা একটি ছবিও পাঠিয়েছে জুরং। সিঁড়িসদৃশ অংশটির সাহায্যেই যন্ত্রটির ভেতর থেকে মঙ্গলের মাটিতে নেমেছিল জুরং, চাকার দাগও রেখে গেছে।

default-image

তৃতীয় ছবিতে অবতরণের জায়গা থেকে ফাঁকা প্রান্তর দেখা যাচ্ছে। যত দূর চোখ যায়, কেবলই লাল মাটি। মঙ্গলের উত্তর গোলার্ধের ওই অঞ্চলের নাম ইউটোপিয়া প্ল্যানিশিয়া।

রোভার অভিযানের সাফল্য উদযাপনে ছবিগুলো প্রকাশ করেছে চীনের মহাকাশ সংস্থা চায়না ন্যাশনাল স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (সিএনএসএ)। বিজ্ঞানীদের আশা, লাল গ্রহে অন্তত ৯০ সোল বা মঙ্গলের দিন কাটাবে জুরং। এ সময় নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাবে।

default-image

জুরং দেখতে অনেকটা ২০০০ সালের দিকে নাসার তৈরি স্পিরিট এবং অপরচুনিটি রোভারের মতো। এর ওজন ২৪০ কেজির আশপাশে। মাঝবরাবর খুঁটির মাথায় ছবি তোলার জন্য আছে ক্যামেরা, পথনির্দেশনার জন্যও ব্যবহার করে সেটি। আর গোটা পাঁচেক যন্ত্রপাতি মঙ্গলের পাথুরে ভূমির খনিজ উপাদান পরীক্ষা করে দেখবে, সে সঙ্গে আবহাওয়া এবং পরিবেশ সম্পর্কেও তথ্য সংগ্রহ করবে।

default-image

নাসার কিউরিসিটি ও পার্সিভারেন্স রোভারের মতো জুরংয়ের পাথরে আঘাত করার জন্য একটি লেজার টুল আছে। সেটি দিয়ে পাথুরে মাটির রসায়ন বুঝতে চেষ্টা করবে। আর ভূগর্ভে বরফ আছে কি না, জানার জন্য একটি রাডার আছে এতে।

গত বৃহস্পতিবার মঙ্গলের কক্ষপথ থেকে তোলা জুরংয়ের একটি রঙিন ছবি প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব অ্যারিজোনা। হাইরাইজ নামের ক্যামেরাটি মঙ্গলের কক্ষপথে আবর্তনরত নাসার মার্স রিকনোসেন্স অরবিটার উপগ্রহে যুক্ত। ছবিতে তিয়ানওয়েন-১ নভোযানের ল্যান্ডার অবতরণের রকেট ইঞ্জিনের ব্লাস্টের দাগ স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। দক্ষিণের বিন্দুটি জুরং রোভার।

default-image
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন