default-image

টিকটকের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আপাতত বন্ধ রাখল যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য বিভাগ। গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে চীনা ভিডিও শেয়ারের এ অ্যাপটি যুক্তরাষ্ট্রে নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়তে যাচ্ছিল।

গতকাল রাতেই বাণিজ্য বিভাগ ওই নিষেধাজ্ঞা আপাতত কার্যকর না করার কথা বলেছে। অ্যাপটি বাণিজ্য বিভাগের নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়লে তা যুক্তরাষ্ট্র থেকে আর ডাউনলোড করা যেত না।

যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য বিভাগ বলছে, তারা অ্যাপটির নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি থামিয়েছে আইনগত কারণেই। অ্যাপটি নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে আদালতের রায় এখনো তারা পায়নি। গত সেপ্টেম্বর মাসে তিনজন বিখ্যাত টিকটক তারকা যুক্তরাষ্ট্রে টিকটক চালু রাখার বিষয়ে আদালতে আরজি জানান।ফিলাডেলফিয়ার আদালতে সে মামলা চলছে।

বিজ্ঞাপন

বাণিজ্য বিভাগের এ সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রের ১০ কোটি টিকটক ব্যবহারকারীর জন্য স্বস্তির খবর।
গত সেপ্টেম্বর মাসে টিকটকের চীনা মালিক বাইটড্যান্সের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ালমার্ট ও ওরাকলের সঙ্গে চুক্তির ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল। ওই চুক্তি অনুযায়ী, টিকটকের যুক্তরাষ্ট্রে থাকা সম্পদ টিকটক গ্লোবাল নামের একটি কোম্পানির অধীনে নেওয়ার বিষয়টি উঠে আসে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ওই চুক্তিটি সমর্থন করার আশ্বাস দিয়েছিলেন। তবে টিকটক কর্তৃপক্ষ গত মঙ্গলবার জানিয়েছে, গত দুই মাসে মার্কিন সরকারের কাছ থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া পায়নি তারা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, তিনি চান না টিকটক কোনো মার্কিন কোম্পানির কাছে বিক্রি হয়ে যাক।

ট্রাম্প ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও অভিযোগ করে বলেছিলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের তথ্য চীন সরকারের কাছে পাঠায় টিকটক। তাঁরা অবশ্য কোনো প্রমাণ দিতে পারেননি। টিকটক এ অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছে।

ভারতে ইতিমধ্যে টিকটক অ্যাপটি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক ঝামেলার পর ভারত টিকটকসহ চীনের কয়েকটি অ্যাপ নিষিদ্ধ ঘোষণা করে।

মন্তব্য পড়ুন 0