বিজ্ঞাপন

নেদারল্যান্ডসের আমস্টারডামে একটি সেতু এবং ফ্রান্সের নান্তে একটি বাড়ি বানানো হয়েছিল প্রযুক্তিটির সাহায্যে। তবে টেকলা প্রকল্পে কাঁচামাল হিসেবে পুরোপুরি নির্ভর করা হয় মাটির ওপর। অর্থাৎ যেখানে ইচ্ছা, সেখানে প্রিন্টার পৌঁছানো সম্ভব হলে স্থানীয় মাটি ব্যবহার করে ঘরবাড়ি নির্মাণ করা সম্ভব। বাড়তি কিছুর প্রয়োজন নেই। কাঁচামালের খরচও তুলনামূলক কম।

default-image

ইতালীয় থ্রিডি প্রিন্টিং প্রতিষ্ঠান ওয়াস্প এবং স্থপতি মারিও কুচিনেলার যৌথ প্রকল্প এটি। তাঁরা পুরোনো নির্মাণসামগ্রীর সঙ্গে আধুনিক প্রযুক্তির মিশেল চেয়েছিলেন। মানুষ হাজার বছর ধরে ঘর তৈরিতে মাটি ব্যবহার করে আসছে। মারিও কুচিনেলা বলেছেন, ‘পৃথিবীর যেকোনো জায়গায় পাওয়া যায় এমন উপাদানের সঙ্গে প্রযুক্তির বিবর্তনের মিশ্রণ এটি।’

default-image

বাড়িটির আয়তন সব মিলিয়ে ৬০ বর্গমিটার। সে বাড়িতে রান্নাঘরসহ একটি ‘লিভিং জোন’ এবং একটি ‘নাইট জোন’ আছে। কিছু আসবাবও স্থানীয় মাটি থেকে বানানো হয়েছে কিংবা অন্য কাঠামোর সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি গম্বুজের মাথায় প্রাকৃতিক আলো প্রবেশের জন্য কাচ (স্কাইলাইট) থাকছে। তবে ঋতু বুঝে তাতে পরিবর্তন আনার সুযোগ আছে।

কুচিনেলা বলেছেন, প্রকল্পটির পেছনে বড় কারণ ছিল জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ঠেকানো। জাতিসংঘের পরিবেশ কর্মসূচির হিসাব অনুযায়ী, ২০১৯ সালে বৈশ্বিক মোট কার্বন নিঃসরণে নির্মাণশিল্পের ভূমিকা ছিল ৩৮ শতাংশ।

default-image

প্রকল্পটির পরবর্তী ধাপ হলো, বহুতল ভবন তৈরি কিংবা স্থানীয় অন্যান্য প্রাকৃতিক কাঁচামালের ব্যবহার যুক্ত করা, যেমন কাঠের মেঝে বা বিম থাকতে পারে।

আর কুচিনেলার জন্য প্রকল্পটি মূলত ‘পূর্বপুরুষদের সঙ্গে সেতুবন্ধ গড়ার।’ তিনি কেবল পূর্বপুরুষদের আবাসনের কাঁচামালই ব্যবহার করেননি, নকশাতেও মিল রেখেছেন।

default-image
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন