default-image

শেষ দিন বলে ভিড়টা যেন একটু বেশিই ছিল। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের বাইরে যেন নেমেছিল জনতার ঢল। আর এভাবেই গতকাল বৃহস্পতিবার পর্দা নামে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৫’ নামে তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক আয়োজনের। রাতে সমাপনী অনুষ্ঠানে পুরস্কার বিতরণের মাধ্যমে শেষ হয় তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ ও বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) আয়োজিত ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড।
বেসিসের সভাপতি শামীম আহসান জানালেন, প্রত্যাশার চেয়েও বেশি সফলতা এসেছে এ আয়োজনে। এটি দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় আইসিটি আয়োজনে পরিণত হয়েছে।
বিজয় বাংলা সফটওয়্যারের নির্মাতা আনন্দ কম্পিউটার্সের স্টলে প্রতিদিনই ছিল ভিড়। আনন্দ কম্পিউটার্সের প্রধান নির্বাহী মোস্তাফা জব্বার বলেন, বাঙালিদের একটা আবেগের জায়গা এই বাংলা ভাষা। মাতৃভাষাকেন্দ্রিক কম্পিউটার ব্যবহারে তাই সবার মধ্যেই বেশ আগ্রহ দেখা যাচ্ছে। মেধাস্বত্ব সংরক্ষণে সচেতনতা দরকার বলেও জানান তিনি।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিকেল ফিজিকস অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের স্টলে গবেষক ও ছাত্ররা তাঁদের গবেষণালব্ধ জ্ঞানে তৈরি চিকিৎসা সরঞ্জাম প্রদর্শন করছেন। বিভাগটির গবেষক প্রকৌশলী জিসান আহমেদ জানান, ‘জটিল অস্ত্রোপচারে ব্যবহার করা হয় এমন সরঞ্জাম তুলনামূলক স্বল্পমূল্যে তৈরি করার জন্যই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’
চার দিনের এ আয়োজনে সরকারি সেবাগুলো যেমন দেখানো হয়েছে, তেমনি ছিল বেসরকারি উদ্যোগের প্রদর্শনী। এ আয়োজনে সহযোগী ছিল এটুআই প্রকল্প ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল।—মেহেদী হাসান

বিজ্ঞাপন
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন