বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী ঝ্যাং ঝেংজুন বলেন, সাত বছর আগে বাংলাদেশে এই কার্যক্রম শুরু হয়। তরুণদের যথাযথ যত্ন নিলে ভবিষ্যতে তারা নিজেদের দেশের সম্পদ হিসেবে প্রমাণ করতে পারবে। সে লক্ষ্যে, হুয়াওয়ে ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার’ প্রোগ্রামসহ বেশ কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, যাতে দেশের তরুণদের প্রশিক্ষিত ও দক্ষ করে তোলা যায়।

‘সিডস ফর দ্য ফিউচার’ বিশ্বব্যাপী এসটিইএম (সায়েন্স, টেকনোলোজি, ইঞ্জিনিয়ারিং, ম্যাথ) শিক্ষার্থীদের জন্য হুয়াওয়ের বিশেষ একটি ফ্ল্যাগশিপ সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচি। এ বছর ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার ২০২১ বাংলাদেশ’ আয়োজনে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পাশাপাশি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ও অংশ নিয়েছে। এবার বাছাইপর্বে আটটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ছয় শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একজন ছাত্র ও একজন ছাত্রীকে বিজয়ী হিসেবে নির্বাচিত করা হয়।

এ বছরের বিজয়ী শিক্ষার্থীরা হলেন বুয়েট থেকে ইমতিয়াজ আহমেদ ও সৈয়দা ফাতিমা ফায়রুজ, কুয়েট থেকে সুমাইয়া রহমান ও মেহেদী হাসান, রুয়েট থেকে নাহিয়ান রিফাত ও নাজিফা রহমান, চুয়েট থেকে অনিন্দ্য নন্দী ও ফাতেমা ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সৈয়দ দোহা উদ্দিন ও নিশাত তাসনিম, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি থেকে সীমামুন হাসিবা ও মোহতাসিম তাসনিম, এইউএসটি থেকে কাজী আরহাম কবির ও সাদিয়া কারিশমা এবং আইইউটি থেকে এ কে এম রাকিব ও রামিশা রাইদা।
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে ইউনেসকোর প্রতিনিধি বিয়াট্রিস কালদুন, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) উপাচার্য সত্য প্রসাদ মজুমদার, ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির উপাচার্য অধ্যাপক ওমর জাহ্সহ প্রমুখ।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন