বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সুপার মারিও ৬৪ বাজারজাত শুরু হয় ১৯৯৬ সালে। মুক্তির পরপর সেটি দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। নিনটেনডোর জন্য বিক্রীত গেমগুলোর শীর্ষ তালিকায় স্থান করে নিতেও সময় লাগেনি।

সুপার মারিও গেম সিরিজের মধ্যে সেটিতেই প্রথম ত্রিমাত্রিক গেমিংয়ের আবহ যুক্ত হয়। গেমটির সাফল্যে নিনটেনডো ৬৪ কনসোলের বিক্রিও বাড়তে থাকে। পরের অনেক থ্রিডি ভিডিও গেমে সুপার মারিও ৬৪-এর ফরম্যাট বজায় রাখা হয়।

হেরিটেজ অকশনসের ভিডিও গেম বিশেষজ্ঞ ভ্যালেরি ম্যাকলেকি এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘জেলডা সিরিজের প্রথম গেমের একটি কপি শুক্রবারে রেকর্ড-ভাঙা মূল্যে বিক্রির পর কোনো একক গেমের দাম ১০ লাখ ডলার পার করতে অন্তত আরেকটি নিলাম পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে বলে মনে হয়েছিল। তবে একই নিলামে তা দেখে আমরা চমকে গেছি। ঐতিহাসিক এই ঘটনার অংশ হতে পেরে আমরা গর্বিত।’

নিলামে বিক্রি হওয়া ভিডিও গেমের কপিটি নিখুঁতভাবে মোড়কে আবদ্ধ ছিল। ভিডিও গেমের মান নির্ধারক প্রতিষ্ঠান ওয়াটাগেমস সেটিকে সর্বোচ্চ ‘এ++’ হিসেবে লিপিবদ্ধ করেছে।

১৯৮৫ সালে সুপার মারিওর প্রথম গেম বাজারে আসে। সিরিজটির প্রায় সব গেমই জনপ্রিয়তার তুঙ্গে ছিল। সেই স্মৃতির জন্যই হয়তো নিলামে বরাবরই চড়া দামে বিক্রি হয়েছে সিরিজটির গেমগুলো।

রেকর্ড মূল্যে সুপার মারিও ৬৪ এবং দ্য লিজেন্ড অব জেলডা বিক্রির আগে নিলামে সবচেয়ে বেশি দর উঠেছিল সুপার মারিও ব্রাদার্সের একটি কপির জন্য। সেটি গত এপ্রিলে ৬ লাখ ৬০ হাজার ডলারে বিক্রি হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়।

নিনটেনডো ৬৪ কনসোলের অন্যান্য গেমেও মানুষের আগ্রহ কম নয়। ক্ল্যাসিক গেম পোকেমন স্ন্যাপ নতুন করে গত বছর নিনটেনডো সুইচ কনসোলের জন্য বাজারে ছাড়া হয়।

ভিডিওতে নিলামটি দেখতে পারেন

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন