দীপু মনি বলেন, তাঁরা গত দেড় বছরে এ বিষয়ে কারিগরি পরামর্শক কমিটির পরামর্শ অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কারণ, বিজ্ঞানের বাইরে গিয়ে কিছু করার সুযোগ নেই। কাজেই তাঁদের পরামর্শে এ বিষয়ে ভাবতে হবে, পরিকল্পনা নিতে হবে। কী করা যায়, সে রকম করেই চিন্তা করা হচ্ছে।

করোনার সংক্রমণ কমে আসায় দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর গত সেপ্টেম্বর থেকে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলেছে। তবে সব দিন সব শ্রেণির ক্লাস হয়নি। সপ্তাহে নির্ধারিত দিনে বিভিন্ন শ্রেণির ক্লাস হয়েছে। মোটামুটি পরিকল্পনায় ছিল, নতুন বছর থেকে প্রায় সব শ্রেণির ক্লাসই সব দিনে নেওয়া যায় কি না। কিন্তু এখন করোনার নতুন সংক্রমণের কারণে সামনে কী হয়, সেটি এখনই বলা যাচ্ছে না।

‘অমিক্রন’-এর কারণে প্রয়োজন হলে আবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের মতো কোনো প্রস্তুতি আছে কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে দীপু মনি বলেন, ‘আমরা প্রার্থনা করি, আশা করি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আবারও বন্ধ করে দিতে হয় এমন পরিস্থিতি যেন না হয়। কিন্তু পরিস্থিতির কারণে যদি প্রয়োজন হয়, তাহলে অবশ্য, অবশ্যই শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

পড়াশোনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন