বিজ্ঞাপন

এই পোস্টের নিচে অনেকেই মন্তব্য করেছেন। প্রবাসী মার্টিন নামের এক ফেসবুক আইডি থেকে লেখা হয়েছে, ‘আমি সরয়ারের ছবির ভক্ত নই। ওর সব ছবি আমার ভালো লেগেছে—তেমন নয়। “ডুব” নিয়ে তো আমার অনেক কথা আছে। তবে আমি “শনিবার বিকেল” ছবিটি দেখেছি। এমন সুন্দর একটি ছবি বাংলাদেশের দর্শক দেখতে পারছে না। ফারুকীর জন্য আমার যত না কষ্ট, তার চেয়ে বেশি কষ্ট দর্শকদের জন্য। নেটফ্লিক্সে ছবিটি ছেড়ে দিলে কি খুব ক্ষতি হবে?’

default-image

অনেকেই ছবিটি নেটফ্লিক্স বা অন্য কোনো ওটিটি প্ল্যাটফর্মে মুক্তির পরামর্শ দিয়েছেন। এই বিষয়ে দিনের পর দিন যুদ্ধ করতে করতে ক্লান্ত হলেও হতাশ নন ফারুকী। ফেসবুকের স্ট্যাটাস দেখার পর যোগাযোগ করা হলে ফারুকী বললেন, ‘এর মাঝে দুই বছরের বেশি সময় বয়ে গেছে আসলে। আমি আশা ছাড়িনি। আপিল করেছি। বিবেচনাধীন অবস্থায় রয়েছে। দেখা যাক কী হয়।’

default-image

এর আগে ফারুকী বলেছিলেন, ‘আমরা ছবি বানাই দর্শকের কাছে পৌঁছার আশায়। ছবি বানানো এবং প্রদর্শনের মধ্যকার এই লম্বা দূরত্ব আমাদের ক্লান্ত করে। হতাশ করে। আশা করি, দ্রুত এই হতাশার সমাপ্তি ঘটবে। আপাতত এটুকুই বলতে পারি।’

‘শনিবার বিকেল’ ছবিটি এর আগে মিউনিখ, মস্কো, সিডনি, বুসান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালসহ বিশ্বের বিভিন্ন উৎসবে প্রদর্শিত ও প্রশংসিত হয়। মস্কো চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিয়ে ‘শনিবার বিকেল’ ছবিটি দুটি ইনডিপেনডেন্ট জুরি পুরস্কার অর্জন করে। প্যারিসের ভেসুল উৎসবে অংশ নিয়ে দুটি পুরস্কার ঝুলিতে পুরেছে এই ছবি।

default-image

মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ‘শনিবার বিকেল’ বা ‘স্যাটারডে আফটারনুন’ ছবিতে অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান, তিশা, ইরেশ যাকের, মামুনুর রশীদ প্রমুখ। আছেন ফিলিস্তিনের অভিনেতা ইয়াদ হুরানি ও ভারতের কলকাতার পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।

default-image

ছবিটি নিয়ে এই পরিচালক বলেছিলেন, ‘একটা শনিবার বিকেল, সুন্দর বিকেল, ঝরঝরে বিকেল, চমৎকার বিকেল কী করে দুঃসহ ও বিভীষিকাময় হয়ে উঠল, তা-ই বলতে চেয়েছি। কিন্তু আমাদের গল্পটা শেষ পর্যন্ত বিভীষিকাময় থাকল না, আমাদের গল্পটা শেষ পর্যন্ত আশার।’

বিনোদন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন