চট্টগ্রাম নগরের শিল্পকলা একাডেমী প্রাঙ্গণে বসল নাট্যকর্মীদের মিলনমেলা। উপলক্ষ: গণায়ন নাট্য সম্প্রদায়ের ৪০ বছর পূর্তি উৎসব। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুক্তমঞ্চে শুরু হয় সংগঠনটির নয় দিনব্যাপী এই নাট্যোৎসব।
১৯৭৫ থেকে ২০১৫। সময়ের চাকায় পাড়ি দেওয়া দীর্ঘ পথ। সেই চাকাই যেন শোভা পাচ্ছে শিরীষগাছের তলায়। চাকা দিয়ে বানানো ৪০ বছরের এই স্মারক নজর কাড়ছে দর্শকদের। ছিল গণায়ন প্রযোজিত উল্লেখযোগ্য নাটকের ফেস্টুন। কোথাও বাঁশের বেড়ায় গুঁজে দেওয়া হয়েছে মানুষের মুখোশ, কোথাও উড়ন্ত পাখির অবয়ব।
অনুষ্ঠানের উদ্বোধক নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার। প্রধান অতিথি সংস্কৃতিসচিব রণজিৎ কুমার বিশ্বাস। বিশেষ অতিথি ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার সোমনাথ হালদার ও বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আকতারুজ্জামান। সভাপতি উৎসব উদ্যাপন পরিষদের আহ্বায়ক সাহাবুদ্দিন আহমদ। স্বাগত বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক কুন্তল বড়ুয়া। অনুষ্ঠানে সম্মাননা জানানো হয় সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য দেবব্রত দেওয়ানজী, রণজিৎ রক্ষিত, স্বপন আচার্য, মনতোষ ধর, অভীক ওসমান, শান্তনু বিশ্বাস ও সনজীব বড়ুয়াকে। আলোচনা পর্ব শেষে গান করেন শিল্পী সন্দীপন।
উদ্বোধক রামেন্দু মজুমদার বলেন, ‘এভাবে মানুষগুলোকে পুড়িয়ে মারা হচ্ছে। আমরা এর থেকে পরিত্রাণ চাই। এতে আমাদের সংস্কৃতিকর্মীদেরও ভূমিকা আছে। আমরা আমাদের সুন্দরের সংস্কৃতি দিয়ে সন্ত্রাসকে জয় করতে চাই।’
গণায়ন নাট্য সম্প্রদায় দলের প্রধান ম. সাইফুল আলম চৌধুরী ছিলেন হাসপাতালে। চিকিৎসকদের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে তিনিও চলে এসেছিলেন অনুষ্ঠানস্থলে।

বিজ্ঞাপন
বিনোদন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন