default-image

একটু পরপর থেমে থেমে উল্লাসধ্বনি, করতালি। জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনের সুবিশাল মঞ্চটি খুব ছোটই মনে হচ্ছিল। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে শিশু-কিশোরদের বর্ণিল উপস্থিতি মঞ্চটিকে আলো করে রাখল সারাক্ষণ। আয়োজনের কান্ডারি লিয়াকত আলী মিশে গেলেন শিশুদের মাঝে। তাঁর সঙ্গে স্লোগানে সুরে সুরে কণ্ঠ মেলাল সবাই ‘আমরা সবাই মঞ্চকুঁড়ি...’।
শত শিশু-কিশোরের উপস্থিতিতে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে গতকাল শুক্রবার শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে সপ্তাহব্যাপী জাতীয় শিশু-কিশোর নাট্যোৎসব। পিপলস থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশন (পিটিএ) আয়োজিত এই নাট্যোৎসবে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তন, পরীক্ষণ থিয়েটার হল, স্টুডিও থিয়েটার হল এবং জাতীয় সংগীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে সারা দেশের ৬৫টি শিশু-কিশোর নাট্যদল নিজেদের পরিবেশনা নিয়ে অংশ নিচ্ছে। এবার উৎসবের ১৩ তম আসর।
শুরুটা হয়েছিল জাতীয় নাট্যশালার বাইরে, বর্ণিল বেলুন উড়িয়ে। উদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। সেখান থেকে বিচিত্র পোশাক পরে, হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে শিল্পকলা একাডেমির চারপাশ সচকিত করে অনুষ্ঠিত হয় শোভাযাত্রা। পরে জাতীয় নাট্যশালায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বরেণ্য চিত্রশিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার ও পিটিএর উপদেষ্টা এস এম মহসিন। সভাপতিত্ব করেন পিটিএর প্রতিষ্ঠাতা ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী।
উদ্বোধনী আনুষ্ঠানিকতা শেষে শুরু হয় নাটকের প্রদর্শনী।

বিজ্ঞাপন
বিনোদন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন