default-image

২০১১ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছিলেন জয়া আহসান। এবার রেদওয়ান রনির ‘চোরাবালি’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য দ্বিতীয়বারের মতো সেরা চলচ্চিত্র অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার গ্রহণ করবেন গুণী এ অভিনেত্রী।

নাসির উদ্দীন ইউসুফ পরিচালিত মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ‘গেরিলা’ চলচ্চিত্রে বিলকিস বানু চরিত্রে অনবদ্য অভিনয়ের স্বীকৃতি হিসেবে ২০১১ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছিলেন জয়া। এবার তিনি রেদওয়ান রনির ‘চোরাবালি’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য ২০১২ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন|

চলচ্চিত্রশিল্পে অসাধারণ অবদানের জন্য সম্প্রতি ২৪টি ক্ষেত্রে বিশিষ্ট শিল্পী ও কুশলীদের ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১২’ প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। গত বৃহস্পতিবার তথ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। পরপর দুবার জাতীয় পর্যায়ে এত বড় স্বীকৃতি পাওয়ার অনুভূতিসহ সাম্প্রতিক কাজের খবর নিয়ে কথা বলেছেন জয়া আহসান।

দ্বিতীয়বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন, কেমন লাগছে?
নিঃসন্দেহে ভালো লাগছে। আরও বেশি ভালো লাগছে এই কারণে যে, প্রথম বাণিজ্যিক ছবিতে অভিনয় করেই এত বড় স্বীকৃতি পাচ্ছি। এটা সত্যিই অনেক বেশি আনন্দের। আমি অনেক কৃতজ্ঞ জুরি বোর্ড, পরিচালক রেদওয়ান রনি এবং দর্শকদের কাছে। মূলত তাঁদের জন্যই আমার এ প্রাপ্তি। তাঁদের সবার প্রতি অনেক অনেক কৃতজ্ঞ আমি।


‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১২’ ঘোষণার পর নিজের নাম শুনে প্রথম অনুভূতি কেমন ছিল?

খুব অবাক হয়েছিলাম। অনেক ধন্যবাদ পরিচালক রেদওয়ান রনিকে আমাকে দিয়ে চরিত্রটা করিয়ে নেওয়ার জন্য। আসলে পুরস্কারের কথা মাথায় রেখে আমি কখনো কাজ করি না। শুধু ভালো কাজ করে যেতে চাই। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে পুরস্কার পেলে সেটা আমার কাছে বোনাস। দর্শকেরা আমার অভিনয় দেখে যখন তাঁদের ভালোবাসা ব্যক্ত করেন, সেটা আমার কাছে অনেক বড় একটি বিষয়।

জয়া আহসান এখন কী নিয়ে ব্যস্ত আছেন?

অনিমেষ আইচের ‘জিরো ডিগ্রি’ ছবির কাজ করছি। এখানে আমার চরিত্রের নাম সোনিয়া। এই ছবিতে আমার সহ-অভিনেতা মাহফুজ আহমেদ।

‘আবর্তে’র পর কলকাতায় নতুন কোনো কাজ করছেন কি?

কলকাতার অনেক পরিচালক এবং প্রযোজকের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে আমার। ভালো গল্প পেলেই কাজ শুরু করে দেব।

ছোটপর্দায় জয়া আহসান অনুপস্থিত কেন?

ভালো চরিত্র ও গল্প পেলেই নাটক কিংবা টেলিছবিতে অভিনয় করব।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0