default-image

সাম্প্রতিক সময়ের তুমুল এই জনপ্রিয় গানের আড়ালে থাকা কারিগর তাসনীম সাদিয়াকে নিয়েই আজকের গল্প। ছোটবেলা থেকে রংপুর বেতারে গান গাইতেন তাসনীম। একাডেমিক পড়ালেখার অধ্যায় শেষ করে ঢাকায় পরিচিত এক গীতিকবির কাছে মৌলিক গান চাইলেন। সেই গীতিকবি অগ্রিম টাকা চেয়ে বসলেন। সবে পড়ালেখা শেষ করেছেন, এই মুহূর্তে টাকা পাবেন কোথায়? তাই মনের দুঃখে বনে না গিয়ে ঘরে বসে গান লেখার চেষ্টা শুরু করলেন তিনি।

অতঃপর নিজের লেখা গানে কণ্ঠ দিলেন তাসনীম সাদিয়া। ‘বন্ধু তোকে বলছি’ শিরোনামে ২০১৫ সালে গানটি ইউটিউবে প্রকাশিত হয়। খুব একটা সাড়া মেলেনি। তবে দমে যাননি। পরে মাকে নিয়ে নিজের লেখা গানে কণ্ঠ দিলেন। এই গান ইউটিউবে প্রকাশিত হলো ২০১৯ সালে। মোটামুটি সাড়া পেয়ে অনুপ্রাণিত হলেন। গানে কণ্ঠ দেওয়ার পাশাপাশি গান লেখার ঝোঁক আরও বেড়ে গেল তাঁর। এবার এই তরুণী বাবার সঙ্গে শৈশব-কৈশোরের স্মৃতি ও অভিমান-অনুরাগ নিয়ে চার-পাঁচ দিনের চেষ্টায় লিখলেন নতুন গান। গাইলেনও তিনি।

যে বাবাকে ঘিরে গানটির জন্ম হলো, সেই বাবার নাম হুমায়ুন রেজা স্বপন। তিনি লালমনিরহাট দায়রা জজ-আদালতের আইনজীবী।
default-image

২০১৯ সালেই জি-সিরিজের ব্যানারে গানটি ইউটিউবে প্রকাশিত হয়। গানের কথা ও গায়কি ঢং মানুষের ভালো লেগে গেল। পেলেন বিপুল সাড়া। তবে তাঁর চেয়ে বেশি সাড়া পেয়েছে শিশুশিল্পী জায়মা নূর। সে একটি অনুষ্ঠানে গানটি কাভার করেছিল। সেই গানের ভিডিওটি অনলাইনে ভাইরাল হয়।

যে বাবাকে ঘিরে গানটির জন্ম হলো, সেই বাবার নাম হুমায়ুন রেজা স্বপন। তিনি লালমনিরহাট দায়রা জজ-আদালতের আইনজীবী। মেয়ে তাসনীমের সৃষ্ট বহুশ্রুত গানের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে হুমায়ুন রেজা প্রথম আলোকে বলেন, যেকোনো বাবার জন্য এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। মেয়েটা নিজের চেষ্টায় গান নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি আশা করছেন, সংগীতে তাঁর মেয়ে আরও ভালো কিছু করবেন, আরও অনেক দূরে এগিয়ে যাবে।

অনেকে গানটি ইসলামিক গজল বলে চালানোর চেষ্টা করেন। আসলে এটা কোনো ইসলামিক গজল বা সংগীত নয়। স্রেফ এটা আমার বাবাকে নিয়ে লেখা স্মৃতিচারণামূলক গান।
তাসনীম সাদিয়া
default-image

তাসনীম সাদিয়া ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষে রংপুর কারমাইকেল কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে অনার্সে ভর্তি হন। সেখান থেকেই অনার্স এবং পরে ঢাকার লালমাটিয়া সরকারি মহিলা কলেজ থেকে মাস্টার্স শেষ করেন। তাঁর বাবার বাড়ি রংপুর নগরের সেনপাড়ায়। বর্তমানে ঢাকার উত্তরায় প্রকৌশলী স্বামীর সংসার নিয়ে ব্যস্ত তিনি। বাবার বাড়ির মতো স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনও তাঁর সংগীতচর্চায় পূর্ণ সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন।

গানটির সংগীত পরিচালনা করেছেন আমজাদ হোসেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, তাঁর সংগীত আয়োজনে বেশ কিছু জনপ্রিয় গান আছে। তবে সংগীত অঙ্গনে তাঁর ২৩ বছরের ক্যারিয়ারে এটি অন্যতম উল্লেখযোগ্য গান। গানটি অনেক বছর মানুষের হৃদয়ে বেঁচে থাকবে বলে তিনি বিশ্বাস করেন। জুন মাসের তৃতীয় রোববার (১৯ জুন) বাবা দিবস।

দিবসটি উপলক্ষে দুই বছর ধরে অনেকেই গানটি ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করে বাবার প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা জানিয়ে আসছেন। তাসনীম সাদিয়া বলেন, ‘অনেকে গানটি ইসলামিক গজল বলে চালানোর চেষ্টা করেন। আসলে এটা কোনো ইসলামিক গজল বা সংগীত নয়। স্রেফ এটা আমার বাবাকে নিয়ে লেখা স্মৃতিচারণামূলক গান।’

বিভিন্ন সময়ে লেখা তাসনীমের ভান্ডারে বেশ কিছু গান জমা আছে। সেসব গান পর্যায়ক্রমে মুক্তি দেবেন। পাশাপাশি ভালো গান লেখা ও সংগীতচর্চার মাধ্যমে মানুষের মনে বেঁচে থাকাই তাঁর জীবনের চাওয়া।

বিনোদন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন