ভুয়া ফেসবুক অ্যাকাউন্ট, বিব্রত চম্পা

বিজ্ঞাপন
default-image

দেশ–বিদেশের সব মানুষ এখন করোনা নিয়ে চিন্তিত। কবে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস থেকে মুক্ত হতে পারবে, তা নিয়ে সবার যত ভাবনা। দেশের চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী চম্পাও এ নিয়ে চিন্তিত। পাশাপাশি এই সময়ে ফেসবুক নিয়ে বাড়তি চিন্তা যোগ হয়েছে এই অভিনয়শিল্পীর। কে বা কারা তাঁর নামে একটি ফেসবুক আইডি খুলে করোনার এই সময়ে বিভিন্ন ধরনের কথা ছড়াচ্ছে। যা নিয়ে চম্পা রীতিমতো আতঙ্কিত, বিব্রত। প্রথম আলোর সঙ্গে আলাপে গত সোমবার দুপুরে এমনটাই জানালেন চম্পা।

চম্পা জানান, তাঁর কোনো ফেসবুক আইডি নেই। এমনকি কোনো কালে তিনি ফেসবুক ব্যবহার করতেন না। করোনার এই দুঃসময়ে যাঁরাই এমন কাজ করছেন, তাঁদের ঘৃণা জানানোর ভাষাও নেই বলে জানান চম্পা। প্রথম আলোকে চম্পা বলেন, ‘এর আগে ফেসবুক নিয়ে এমন জটিল পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছি। কিন্তু এবারের বিষয়টা আরও ভয়ংকর। করোনার এই সময়ে কে বা কারা আমার ফেসবুক থেকে উল্টাপাল্টা কথা ছড়াচ্ছে, যাতে মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছেন।

অনেকে আমার নাম করে তহবিল সংগ্রহের নাম করে কারও কারও কাছে নাকি চাঁদাও দাবি করেছে। আমার এক আত্মীয়ের কাছেও এমন প্রস্তাব গেলে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে পারি। ফেসবুক আইডিটিতে আমার এমন সব ছবি দেওয়া হয়েছে, হঠাৎ কেউ দেখলে মনে করবেন, সত্যিই এটি আমি। সবাইকে বলতে চাই, আমি চম্পা কোনো ধরনের কোনো ফেসবুক ব্যবহার করি না। এটা আমার অর্জিত সুনাম নষ্টের চেষ্টাও। করোনার এই সময়ে সবাই যেখানে মানবিকতার নজির রাখার চেষ্টা করছে, সেখানে আমার নামে ফেসবুক দিয়ে উল্টাপাল্টা কথা ছড়াচ্ছে। চাঁদাও কালেক্ট করছে, ভাবা যায়! এটা তো আমার কাছে করোনার চেয়েও বেশি আতঙ্কের মনে হচ্ছে।’

এর আগে চম্পার বোন বরেণ্য অভিনয়শিল্পী ববিতাও ফেসবুক নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হন। তখন দুই বোন আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও ভেবেছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত আরও নেওয়া হয়নি। চম্পা বলেন, ‌‘এখন মনে হচ্ছে, তখন ব্যবস্থা না নিয়ে ভুল হয়েছে। এবার আর ভুল করতে চাই না। এ ধরনের প্রতারক ও অসৎ মানুষকে একটা কঠিন শাস্তি দেওয়ার সময় চলে এসেছে বলে মনে হচ্ছে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন