default-image

হিমাচল প্রদেশের একটি ব্যক্তিমালিকানাধীন অবকাশযাপন কেন্দ্রে পাওয়া গেছে বলিউড অভিনেতা আসিফ বসরার ঝুলন্ত দেহ। পুলিশের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৫৩ বছর।

বিজ্ঞাপন
default-image

মঞ্চের মাধ্যমে অভিনয়জগতে যাত্রা শুরু করেছিলেন আসিফ বাসরা। ১৯৯৮ সালে হরর-থ্রিলার সিরিজ ‘ওহ’তে ইতিহাসের শিক্ষক ওমকার দীক্ষিতের চরিত্রে অভিনয় করে পরিচিতি পান তিনি। তারপর বলিউডের ‘ব্ল্যাক ফ্রাইডে’, ‘যাব উই মেট’, ‘কায় পো চে’, ‘কৃষ থ্রি’, ‘ওয়ানস আপন আ টাইম ইন মুম্বাই’, ‘এক ভিলেন’, ‘হিঁচকি’সহ অনেকগুলো সিনেমার গুরুত্বপূর্ণ সব চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। ২০২০ সালে মুক্তি পাওয়া ‘হোস্টেজেস’ সিরিজেও তিনি অভিনয় করেছেন আজগর নবির চরিত্রে। আসিফের মৃত্যুর খবরে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ‘হোস্টেজেস’ দ্বিতীয় মৌসুমের পরিচালক শচিন কৃষণ বলেন, ‘খবরটি শুনে আমি হতবাক হয়ে গেছি। শুটিং সেটে একজন আমুদের মানুষ হিসেবে তাঁকে পেয়েছি। আমরা বরং তাঁকে ঈর্ষা করতাম। একটা মানুষ পাহাড়ে থাকেন, কেবল শুটিংয়ের সময় মুম্বাই আসতেন। তিনি যে কেবল একজন ভালো অভিনেতা ছিলেন, তা–ই নয়, তিনি চমৎকার একজন মানুষ ছিলেন। তাঁকে হারানো একপ্রকার ব্যক্তিগত ক্ষতির মতো।’

default-image

আসিফ ভারতের হিমাচল প্রদেশের ধর্মশালায় একটি প্রাইভেট কমপ্লেক্সে থাকতেন। যুক্তরাজ্যপ্রবাসী এক তরুণীর সঙ্গে সেখানে থাকতেন এই অভিনেতা। বৃহস্পতিবার সকালে পোষা কুকুরকে নিয়ে তিনি হাঁটতেও বের হয়েছিলেন। পুলিশের ধারণা, বাড়িতে ফেরার পর কুকুরের বেল্ট গলায় জড়িয়েই আত্মহত্যা করেছেন তিনি। ধর্মশালার পুলিশ সুপার বিমুক্ত রঞ্জন ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানিয়েছেন, আসিফ বসরা আজ সকালে আত্মহত্যা করেছেন। তাঁর মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। আগামীকাল তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া যাবে। ঘটনাস্থলে কোনো সুইসাইড নোট পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া জানা গেছে, বেশ কিছু দিন ধরে মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন আসিফ। সে কারণেই আত্মহত্যা করেছেন কি না, সেটিই খতিয়ে দেখবে তদন্তকারীরা। আসিফের মৃত্যুতে অভিনেতা মনোজ বাজপেয়ি টুইটে লিখেছেন, ‘কী! অত্যন্ত বেদনাদায়ক খবর! লকডাউনের কয়েক দিন আগেও তাঁর সঙ্গে শুটিং করেছি! ও মাই গড!’

আসিফের মৃত্যুর ঘটনাটি পাঁচ মাস আগে বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর কথা মনে করিয়ে দেয়। সুশান্তের মৃত্যুর তদন্ত এখনো চালিয়ে যাচ্ছে সিবিআই। ঘটনার সঙ্গে মাদকসম্পৃক্ততা আছে কি না, সেটা খতিয়ে দেখছে নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো। অভিনেতার সম্পদ আত্মসাতের জন্য ঘটনাটি ঘটানো হলো কি না, সেসবের তদন্ত করছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0