ইউটিএফ টেলিফিল্মস প্রাইভেট লিমিটেডের পক্ষ থেকে আইনজীবী রবি পন্থ জানান, সিনেমা বানানোর জন্য তাদের কাছ থেকে ৩২ কোটি ২৫ লাখ টাকা ধার করে আমিশা ও তাঁর সংস্থা। এই সূত্র ধরে আমিশা অভিযোগকারী প্রতিষ্ঠানকে দুটি চেক দেন। কিন্তু চেকগুলো ব্যাংকে জমা দেওয়া হলে দুটি চেকই বাউন্স করে।

ভারতীয় একাধিক গণমাধ্যম জানিয়েছে, এই অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে আগেও চেক জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে। ইন্দোরের নিশা ছিপ্পার কাছ থেকে ১০ লাখ রুপি নিয়েছিলেন আমিশা প্যাটেল। কারণ সেই একই, ছবি প্রযোজনা। বদলে নিশাকে একটি চেক দিয়েছিলেন এই অভিনেত্রী। কিন্তু অভিযোগ পাওয়া গেছে, ইন্দোরের একটি ব্যাংকে ওই চেক জমা দিলে সেখানেও টাকা দিতে অস্বীকার করে ব্যাংক।

default-image

চেক জালিয়াতির ঘটনায় এর আগেও আইনি সমস্যায় পড়েছিলেন আমিশা। ২০১৯ সালে রাঁচির একটি আদালত চেক বাউন্স এবং প্রতারণার মামলায় আমিশার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিলেন।

বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন