আয়ুষ্মানের কী আছে যা শাহরুখের নেই

আজ থেকে ৩৬ বছর আগে ১৪ সেপ্টেম্বর চণ্ডীগড়ের এক সাধারণ পরিবারে জন্মেছিলেন আয়ুষ্মান খুরানা। সেদিন কে জানত, এই ছেলেই একদিন বলিউডে নিজের আসন পোক্ত করবেন। একদিন তাঁর তুলনা করা হবে শাহরুখের সঙ্গে।

শাহরুখ খান ও আয়ুষ্মান খুরানা
শাহরুখ খান ও আয়ুষ্মান খুরানাকোলাজ: আমিনুল ইসলাম
বিজ্ঞাপন

আজ থেকে ৩৬ বছর আগে ১৪ সেপ্টেম্বর চণ্ডীগড়ের এক সাধারণ পরিবারে জন্মেছিলেন আয়ুষ্মান খুরানা। সেদিন কে জানত, এই ছেলেই একদিন বলিউডে নিজের আসন পোক্ত করবেন। একদিন তাঁর তুলনা করা হবে শাহরুখের সঙ্গে। বলা হবে, ‘খুরানা, দ্য নেক্সট খান’। ইতিমধ্যে আয়ুষ্মানের ঝুলিতে এমন কিছু যোগ হয়েছে, যা কিনা খোদ শাহরুখেরও নেই। কী সেগুলো? দেখে নেওয়া যাক এক নজরে।

default-image

শাহরুখ খান শুরু করেছিলেন ১৯৮৮ সাল থেকে। অভিনয় করেছেন ৮০টিরও বেশি সিনেমায়। সেসবের একটি ছবিও জাতীয় পুরস্কার পায়নি। পদ্মশ্রী বা ১৪টি ফিল্মফেয়ার শাহরুখের অভিনয়জীবনে জাতীয় স্বীকৃতির শূন্যস্থান পূরণ করতে পারেনি। জায়গাটা এখনো খালিই রয়ে গেছে। অন্যদিকে শাহরুখকে আইডল মানা আয়ুষ্মান ইতিমধ্যে ‘বাঁধাই হো’ সিনেমা করে বাগিয়ে নিয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জাতীয় পুরস্কার ছাড়াও আয়ুষ্মানের ঝুলিতে আছে অসংখ্য প্রথাবিরোধী চরিত্র আর চলচ্চিত্র। শাহরুখের ‘লার্জার দ্যান লাইফ’ হিরোর ধারণাকে পেছনে ফেলে নতুন করে লিখলেন হিরো শব্দের অর্থ। তাঁর শুরুটা হয়েছিল ‘ভিকি ডোনার’ সিনেমা দিয়ে। ‘ভিকি অরোরা’ নামে সিনেমার সেই হিরো সুইজারল্যান্ডের চমৎকার ফুলবাগানে নাচেন না, আইসল্যান্ডে পড়ে থাকা উড়োজাহাজে চড়ে গানও করেন না, জানেন না ঢিশুম-ঢিশুম। কিন্তু চরিত্রটি তিনি ফুটিয়ে তুলেছিলেন অসাধারণভাবে। প্রতিটি সিনেমায় আয়ুষ্মান এ রকম বৈচিত্র্যময় চরিত্র হয়ে এসেছেন, প্রথাগত সিনেমাপ্রেমীরা যেগুলোকে নায়ক বলে মানতেই চাইবেন না।

জাতীয় পুরস্কার ছাড়াও আয়ুষ্মানের ঝুলিতে আছে অসংখ্য প্রথাবিরোধী চরিত্র আর চলচ্চিত্র। শাহরুখের ‘লার্জার দ্যান লাইফ’ হিরোর ধারণাকে পেছনে ফেলে নতুন করে লিখলেন হিরো শব্দের অর্থ।
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বড় পর্দার হিরোর মাথায় নেই চুল! এমন হিরোর কথা কে ভেবেছিলেন কবে? ‘বালা’ নামের সেই সিনেমায় দেখা যায় টাকু মাথা নিয়ে অস্বস্তিতে ভুগছেন হিরো। মাথায় তাঁর পরচুলা। প্রেমিকার সামনে গিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকেন, কখন মাথা থেকে সেটা খুলে যায়! ‘ড্রিম গার্ল’ সিনেমায় দেখা গেল, এই হিরো মেয়েদের স্বরে কথা বলছেন। চরিত্রগুলো অতি সাধারণ, সব সময় মানুষের আশপাশেই তাঁদের দেখা যায়। সেই চরিত্রগুলোকে সামনে নিয়ে এসেছেন কিছু নির্মাতা। আর সেগুলোকে বিশ্বাসযোগ্য আর উপভোগ্য করে তুলেছেন খুরানা। স্বল্প বাজেটের সেসব সিনেমা একদিকে বক্স অফিস থেকে আয় করেছে কোটি কোটি টাকা, অন্যদিকে দুহাতে ঘরে তুলেছে পুরস্কারের ট্রফি আর শুভেচ্ছার ফুল। সেই দিক থেকে শাহরুখের চেয়ে কিছুটা এগিয়ে রাখাই যায় আয়ুষ্মান খুরানাকে। এখন নিশ্চয়ই বলে দিতে হবে না, গতকালই ছিল আয়ুষ্মানের জন্মদিন!

default-image
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন