default-image

১২ নভেম্বর দীপাবলিতে মুক্তি পাচ্ছে অনুরাগ বসু পরিচালিত ‘লুডো’। লাল, নীল, সবুজ ও হলুদ—এই চার রঙে রঙিন ছবিটি চার পরিবারকে ঘিরে। অভিষেক বচ্চন, পঙ্কজ ত্রিপাঠী, রাজকুমার রাও, আদিত্য রায় কাপুর, ফাতিমা সানা শেখ, সানিয়া মালহোত্রাসহ আরও অনেক তারকা অভিনয় করেছেন এখানে। এই ছবির কাহিনিও অনুরাগের নিজের।

সম্প্রতি এক ভার্চ্যুয়াল সাক্ষাৎকারে ‘প্রথম আলো’র মুম্বাই প্রতিনিধিকে অনুরাগ ‘লুডো’ সম্পর্কে বলেন নানা কথা। এই আলাপচারিতার শুরুতেই উঠে আসে ছবির কাস্টিং নিয়ে। অনুরাগ বলেন, ‘আমি গল্প লেখার সময় চরিত্রগুলোর পাশে অভিনেতার নাম লিখে রেখেছিলাম। পঙ্কজ ত্রিপাঠী, অভিষেক বচ্চন, আদিত্য রায় কাপুর, রাজকুমার, ফাতিমা সানা—প্রত্যেকেই আমার পছন্দের প্রথম তালিকায় ছিল। একমাত্র সানিয়ার নাম এই তালিকায় ছিল না। আর সত্যি ভাগ্যবান যে আমি যাঁদের যাঁদের চেয়েছিলাম, তাঁদের প্রত্যেককেই লুডোতে পেয়েছি।’

default-image
বিজ্ঞাপন

সাধারণত পরিচালকেরা এক ছবিতে একের বেশি তারকা সামলাতে হিমশিম খান। তবে অনুরাগ মনে করেন, তারকাবহুল ছবি পরিচালনা করা অত বেশি চ্যালেঞ্জিং নয়, বরং এ ধরনের গল্প লেখা অনেক বেশি চ্যালেঞ্জের। এতগুলো চরিত্রকে এক সূত্রে গাঁথা অনেক কঠিন কাজ অনুরাগের কাছে।

default-image

অনুরাগ বসু পরিচালিত শেষ ছবি ‘জাগগা জাসুস’ বক্স অফিসে প্রত্যাশামতো সাড়া ফেলতে পারেনি। এই আড্ডায় রণবীর কাপুর ও ক্যাটরিনা কাইফ অভিনীত এই ছবির ব্যর্থতার কারণও বলেন অনুরাগ। হতাশার সুরে তিনি বলেন, ‘ছবিটা ধীরে ধীরে মানুষের কাছে পৌঁছাচ্ছে। ছবিটা আমি মূলত বাচ্চাদের জন্য বানিয়েছিলাম। কিন্তু দুঃখের বিষয়, একটা শিশুও ছবিটি দেখতে হলে আসেনি। ছবির শুরুতেই আমি বলেছিলাম যে ছবিটি শিশু এবং যাদের মনের মধ্যে শিশুসত্তা লুকিয়ে আছে, তাদের জন্য। আমার এই কনসেপ্ট বুঝতে বুঝতেই দর্শক হল থেকে বেরিয়ে যায়। ছবিটা হল থেকে নেমে যায়।’

এরপরই উঠে আসে অনুরাগের সুপারহিট ছবি ‘লাইফ ইন আ মেট্রো’র কথা। এই ছবির সফলতার অন্যতম কান্ডারি ছিলেন বলিউড অভিনেতা ইরফান খান। ইরফান প্রসঙ্গে অনুরাগ বলেন, ‘টেলিভিশনে ইরফানের সঙ্গে অনেক কাজ করেছি। কিন্তু ছবিতে একসঙ্গে কোনো কাজ করা হয়নি বলে তাঁর আক্ষেপ ছিল। অভিমান করে তিনি এ কথা আমাকে বলেও ছিলেন। আমি তাঁকে এই ছবির কথা বলি। একাধিক অভিনেতাকে নিয়ে ছবি বলে তাঁর একটু আপত্তি ছিল। পরে ছবির গল্প শুনে ইরফানের দারুণ লাগে। আর তিনি ছবিটি করতে রাজি হন।’

বিজ্ঞাপন
default-image

অনুরাগ আরও বলেন, ‘“জাগগা জাসুস” ছবির শুটিংয়ের সময় একবার ইরফানের সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছিল। তিনি তখন আমাকে “মেট্রো” ছবির সিকুয়েল বানানোর কথা বলেন। আমার সঙ্গে দেখা হলে ইরফান বারবার এ কথা বলতেন। তাঁর কথামতো আমি “মেট্রো” ছবির সিকুয়েলের চিত্রনাট্য লিখে ফেলি। তবে এটি এখনো পূর্ণাঙ্গ রূপ পায়নি। আজ যদি ইরফান আমাদের মধ্যে থাকত, তাহলে হয়তো এত দিনে এর শুটিং শুরু হয়ে যেত। আগামী দিনে যদি মেট্রোর সিকুয়েল আসে, তাহলে তাঁর জন্যই আসবে।’
প্রবাদতুল্য সংগীতশিল্পী কিশোর কুমারের বায়োপিক নির্মাণ নিয়েও আলোচনা করেন অনুরাগ। জোর রব, যে কিশোর কুমারের ভূমিকায় দেখা যাবে রণবীর কাপুরকে। তবে এই গুঞ্জন উড়িয়ে দেন অনুরাগ। তিনি জানান, এখনো এ ব্যাপারে কিছুই চূড়ান্ত হয়নি।

মন্তব্য পড়ুন 0