বিজ্ঞাপন
default-image

এই তিন খানের কৈশোরের ঈদ ছিল একেবারে অন্য রকম। তখন তাঁরা কেউই আজকের তারকা নন। বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে তাঁরা বলেছেন শৈশবের ঈদ উদ্‌যাপনের স্মৃতি। সালমান খানের শৈশবের ঈদ স্মৃতি বেশ আনন্দের। তারকা পরিবারের জন্ম হওয়ায় ঈদে বাড়িভর্তি অতিথি থাকত। তাই সালমানের শৈশবের ঈদ মানেই বাড়িতে আত্মীয়স্বজনের সমাগম।

ঈদের দিন পরিবার আর বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে সময় কাটাতে ভালোবাসেন সালমান খান। তিনি রোজাও রাখেন। রমজান মাসে বিশেষ কিছু নিয়ম মেনে চলেন সালমান। এই কয়েক দিন বেশ ভোরে ঘুম থেকে ওঠেন তিনি। এই সময়ে নিজেকে ইতিবাচক রাখার চেষ্টা করেন তিনি। তবে ঈদের সময়ে সালমানের বাড়ির বিরিয়ানি বলিউডে দারুণ জনপ্রিয়। ঈদের দিন বলিউডের অনেক তারকাই সালমান খানের বাড়ির বিরিয়ানির অপেক্ষায় থাকেন।

জানা গেছে, সালমানের মা সালমা খানের নিজস্ব রেসিপি এটি। তবে সালমান বিরিয়ানির চেয়েও মায়ের হাতের শিরখুরমা খেতে বেশি পছন্দ করেন। এক সাক্ষাৎকারে সালমান তাঁর ঈদ উদ্‌যাপনের স্মৃতিচারণা করেছিলেন। শৈশবের ঈদ নিয়ে সালমান বলেন, ‘বিশেষ এই দিনে আমরা পরিবারের সবাই এক হতাম। বাড়ির আঙিনায় এলাহি খাবারদাবারের ব্যবস্থা করা হতো। আমরা ছোটরা ক্রিকেট, ফুটবল খেলতে ব্যস্ত থাকতাম। আর বড়রা নিজেদের মধ্যে আড্ডা দিতেন। এদিন আমাদের বাড়িতে প্রচুর মানুষ আসতেন। শুধু মুসলিম নয়, হিন্দু, কোলি, পার্সি, ক্যাথলিকসহ ভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ ঈদের দিনে আমাদের বাড়িতে আসতেন। মনে হতো আমরা সবাই একই পরিবারের। বাড়ির বাইরেও বহু মানুষকে খাবার দেওয়া হতো।’

default-image

সালমান আরও বলেন, ‘রমজানের সময় মা এক বাটি শুকনো ফল বাড়ির জানালার রোদে রাখতেন। রোজ পাখিরা এসে সেগুলো খেত। আর যা বেঁচে যেত আমি, আরবাজ আর সোহেল ভাগ করে খেতাম।’
রোজা রাখার স্মৃতিচারণাও করেছিলেন সালমান খান। তিনি বলেন, ‘আমি তখন স্কুলে পড়ি। সেদিন রোজা রেখেছিলাম। স্কুলের সুইমিংপুলে সাঁতার কাটব বলে ঝাঁপ দিয়েছি। আর যেই পানিতে ঝাঁপ দিয়েছি, অমনি আমার মুখে পানি ঢুকে যায়। রোজা রেখেছিলাম বলে পেট থেকে সেই পানি বের করতে মরিয়া হয়ে যাই।’

default-image
বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন