default-image

বলিউডের অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের সঙ্গে এখন পর্যন্ত আদিত্য পাঞ্চোলি, অজয় দেবগনসহ আরও কয়েকজনের প্রেমের খবর চাউর হয়েছে। একাধিক প্রেমের কথা অকপটে স্বীকারও করেছেন ২৭ বছর বয়সী এ কুইন তারকা। অবশ্য কোনো সম্পর্কই টেকাতে পারেননি তিনি। সম্প্রতি কঙ্গনার ব্যর্থ প্রেমের গল্প নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।
কঙ্গনা-আদিত্য পাঞ্চোলি
বলিউডে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার জন্য তখন সংগ্রাম করছিলেন কঙ্গনা। সে সময় বয়সে ২০ বছরের বড় বিবাহিত ও দুই সন্তানের জনক আদিত্য পাঞ্চোলির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ান কঙ্গনা। পরে অবশ্য তিনি আদিত্যর সঙ্গে প্রেম এবং ভেঙে যাওয়া প্রেমের কথা জানান। আদিত্যর সঙ্গে কঙ্গনার প্রেমের খবরে শোরগোল উঠেছিল বলিউডে। কঙ্গনাকে বাড়ি কিনে দেওয়ার জন্য বিশাল অঙ্কের টাকা দিয়েছিলেন আদিত্য। এ ছাড়া কঙ্গনার বোন অ্যাসিড হামলার শিকার হওয়ার পর তাঁর চিকিৎসার খরচও দিয়েছিলেন আদিত্য। স্ত্রী-সন্তান ছেড়ে কঙ্গনার সঙ্গে থিতু হওয়ারও ঘোষণা দিয়েছিলেন আদিত্য। পরে অবশ্য তাঁদের সম্পর্ক টেকেনি। কঙ্গনার সঙ্গে প্রতারণার পাশাপাশি তাঁর গায়ে হাত তোলার অভিযোগ উঠেছিল আদিত্যর বিরুদ্ধে। বছর দুয়েক আগে একটি সংবাদ সম্মেলনে কঙ্গনা বলেন, ‘এখন আর আমাদের মাঝে কিছুই অবশিষ্ট নেই। হ্যাঁ, একটা সময়ে আমি আদিত্য পাঞ্চোলিকে খুব ভালোভাবে জানতাম। কিন্তু এখন আর আমাদের মধ্যে কোনো যোগাযোগ নেই। আমরা একে অন্যের সঙ্গে কথাও বলি না।’ এদিকে সম্প্রতি জানা গেছে, আত্মজীবনীমূলক বই প্রকাশ করতে যাচ্ছেন আদিত্য। বইটিতে তিনি কঙ্গনার সঙ্গে প্রেমের খঁুটিনাটি নানা বিষয় বিস্তারিতভাবে তুলে ধরবেন।
কঙ্গনা-অধ্যয়ন সুমন
আদিত্য পাঞ্চোলির সঙ্গে বিচ্ছেদের পর ২০০৯ সালে মুক্তি পাওয়া রাজ ২ ছবির সহ-অভিনেতা অধ্যয়ন সুমনের সঙ্গে কঙ্গনার প্রেমের খবর চাউর হয়। ছবির সেটে প্রখ্যাত অভিনেতা ও টিভি ব্যক্তিত্ব শেখর সুমনের ছেলে অধ্যয়নের সঙ্গে কঙ্গনার পরিচয় ও প্রেমের শুরু। কিন্তু তাঁদের প্রেমকে মেনে নিতে পারেননি শেখর সুমন। ধনাঢ্য একজন আবাসন ব্যবসায়ীর মেয়ের সঙ্গে শেখর তাঁর ছেলের বিয়ে দিতে চেয়েছিলেন। এসব কারণে কঙ্গনার সঙ্গে অধ্যয়নের প্রেম ভেঙে যায়। এক সাক্ষাৎকারে অধ্যয়ন বলেছিলেন, ‘হ্যাঁ, আমরা সম্পর্ক ভেঙে দিয়ে যার যার মতো সামনে এগিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি আমার পেশাগত কাজেই সমস্ত মনোযোগ কেন্দ্রীভূত রাখতে চাই।’ অধ্যয়নের সিদ্ধান্তে বিশাল ধাক্কা খেয়েছেন বলেই জানিয়েছিলেন কঙ্গনা। এ প্রসঙ্গে তাঁর ভাষ্য ছিল, ‘আমাদের সম্পর্কের ভবিষ্যৎ নিয়ে অধ্যয়নের সঙ্গে আমি আলোচনা করেছি। সম্পর্ক ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্ত সে–ই নিয়েছে। এতে আমি প্রচণ্ড ধাক্কা খেয়েছি। পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে আমাদের বিচ্ছেদ ঘটেছে। আমি তার সুন্দর ভবিষ্যৎ প্রত্যাশা করি।’
কঙ্গনা-অজয় দেবগন
২০১০ সালে মুক্তি পাওয়া ওয়ান্স আপন এ টাইম ইন মুম্বাই ছবিতে অজয় দেবগনের সঙ্গে অভিনয় করার সময় অজয়-কঙ্গনার প্রেমের খবর চাউর হয়। সে সময় অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন অজয়ের স্ত্রী বলিউডের অভিনেত্রী কাজল। অজয়ের অনুরোধে তাঁর অভিনীত রাসকেলস ও তেজ ছবিতে কঙ্গনাকে নিয়েছিলেন নির্মাতারা। শুরুতে তেজ ছবিতে বিদ্যা বালানের অভিনয়ের কথা ছিল। কিন্তু ছবির পরিচালক প্রিয়দর্শনকে বলে ছবিটিতে বিদ্যার পরিবর্তে কঙ্গনার অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করেন অজয়। শুরুর দিকে সাময়িক প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন অজয়-কঙ্গনা। একে অন্যের কাছে কোনো প্রত্যাশাও তাঁদের ছিল না। কিন্তু ধীরে ধীরে অজয়ের প্রতি কঙ্গনা যথেষ্ট দুর্বল হয়ে পড়লেও, কাজলকে ছেড়ে যাওয়ার কোনো ইচ্ছে ছিল না অজয়ের। এ জন্য শেষ পর্যন্ত অজয়-কঙ্গনার প্রেমের অধ্যায় সামনে আর এগোতে পারেনি। পরবর্তী সময়ে অজয়ের সঙ্গে জড়িয়ে ভুল করেছিলেন বলে স্বীকারোক্তি দেন কঙ্গনা। স্টারডাস্ট ম্যাগাজিনে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অজয়কে উদ্দেশ করে কঙ্গনা বলেন, ‘বিবাহিত একজন মানুষের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে ভুল করেছিলাম আমি।’
কঙ্গনা-নিকোলাস লেফারটি
২০১১ সালে যুক্তরাজ্যের চিকিৎসক ও বিজ্ঞানী নিকোলাস লেফারটির সঙ্গে কঙ্গনার প্রেমের খবর চাউর হয়। মুম্বাইয়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বহুবার একসঙ্গে দেখা গেছে এ জুটিকে। শুরুর দিকে চুপ থাকলেও পরবর্তী সময়ে একটি টিভি অনুষ্ঠানে নিকোলাসের সঙ্গে প্রেমের কথা স্বীকার করেন কঙ্গনা। কিন্তু এক বছরের মাথায় হঠাৎ করেই সম্পর্কের ইতি টানেন তাঁরা। তাঁদের বিচ্ছেদের মূল কারণ জানা না গেলেও ধারণা করা হয়, দূরত্বের কারণেই তাঁদের প্রেম ভেঙে গেছে। পৃথিবীর দুই প্রান্তে বসবাস করার কারণেই সম্পর্ক ধরে রাখতে ব্যর্থ হন তাঁরা।

বিজ্ঞাপন
বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন