বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মাদক কাণ্ডে খবরের শিরোনামে উঠে আসেন এনসিবির আঞ্চলিক পরিচালক সমীর বানখেড়েও। তাঁকে নিয়েও যথেষ্ট জলঘোলা হয়েছে।। তাঁর নেতৃত্বেই জাহাজে অভিযান চালায় এনসিবি। নানা আলোচনা, সমালোচনা তাঁকে নিয়ে। একপর্যায়ে তাঁর বিরুদ্ধে উঠেছে ঘুষ চাওয়ার অভিযোগ।  সম্প্রতি মহারাষ্ট্রের এক মন্ত্রী অভিযোগ তুলেছেন, এই কর্মকর্তা মানুষকে ভুয়া মামলায় ফাঁসাচ্ছেন। নিরাপত্তা চেয়ে তিনি নিজেও বম্বে হাইকোর্টের দ্বারস্থও হয়েছেন। তাঁর আশঙ্কা তাঁকে গ্রেপ্তার করতে পারে মুম্বাই পুলিশ।

default-image

অন্যদিকে বম্বে হাইকোর্টকে মুম্বাই সরকারের আইনজীবী জানিয়েছেন যে, দুর্নীতি রোধ আইনে পদক্ষেপ নিতে হলে ৭২ ঘণ্টা আগে নোটিশ পাঠানো হয়। গ্রেপ্তার করতে হলে, সমীর বানখেড়েকে ৭২ ঘণ্টা আগে সেই নোটিশ পাঠানো হবে। ফলে বৃহস্পতিবার বম্বে হাইকোর্ট সমীর বানখেড়ের অন্তর্বর্তী সুরক্ষা চেয়ে আবেদন খারিজ করে দিয়েছে। আরিয়ান খানের জামিন মঞ্জুর হওয়ায় কী বললেন আলোচিত সমীর বানখেড়ে?

ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের সাংবাদিকেরা তাঁর প্রতিক্রিয়া চান। তবে এ বিষয়ে মুখ খোলেননি বানখেড়ে। জানা গেছে কারও প্রশ্নের জবাব না দিয়ে দ্রুত আদালত থেকে চলে যান সমীর বানখেড়ে। গত ৩ অক্টোবর ক্রুজ মাদক কাণ্ডে তাঁদের গ্রেপ্তার করে এনসিবি। সব মিলে ২৫ দিন পর জামিন পেলেন শাহরুখ-পুত্র।

default-image

আরিয়ান খান, আরবাজ মার্চেন্ট, মুনমুন ধামেচা তিনজনেরই জামিন মঞ্জুর করা হয়েছে। গত ২১ দিন ধরে মুম্বাইয়ের আর্থার রোড জেলে বন্দী রয়েছেন আরিয়ান। তবে আদালতের নির্দেশনামা না পৌঁছানো পর্যন্ত জেল মুক্তির সম্ভাবনা কম। আগামীকাল বা পরশু জেল থেকে ছাড়া পেতে পারেন শাহরুখ-পুত্র। বলিউডের একটি অংশের কাছে মূর্তিমান আতঙ্কের নাম মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সমীর বানখেড়ে।

অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের অস্বাভাবিক মৃত্যুর তদন্তে মাদক-যোগ থেকে শুরু করে ২০১১ সালে মুম্বাই বিমানবন্দরে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ট্রফি আটকে দেওয়া—সবখানে 'নায়ক' সমীর। ২০১১ সালে মুম্বাই বিমানবন্দরে বিশ্বকাপ ট্রফি পর্যন্ত আটকে দিয়েছিলেন বানখেড়ে। অভিযোগ, সোনায় মোড়া ট্রফিটির আমদানি শুল্ক ফাঁকি দেওয়া হয়েছে। পরে সেই শুল্ক মিটিয়ে ট্রফি ছাড়াতে হয়েছিল। ২০১৩ সালে বিদেশি মুদ্রাসহ মুম্বাই বিমানবন্দর থেকে গ্রেপ্তার করেন মিকা সিংকে। রিয়া চক্রবর্তীর মাদক কেলেঙ্কারির তদন্তের দায়িত্বও ছিল তাঁর কাঁধে।

default-image

২০০৮ ব্যাচের আইএএস কর্মকর্তা সমীর বানখেড়ে। তাঁর সঙ্গে অবশ্য বলিউডের যোগাযোগও রয়েছে। জানা যায়, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ ব্যুরোর এই কর্মকর্তা বলিউড অভিনেত্রী ক্রান্তি রেদকরের স্বামী। ২০০৩ সালে অজয় দেবগনের 'গঙ্গাজল' ছবিতে কাজ করেছেন ওই অভিনেত্রী। একাধিক মারাঠি ছবিতেও অভিনয় করেছেন ক্রান্তি রেদকর।

বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন