বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

পরিণীতি আরও বলেন, ‘ক্যারিয়ারের প্রথম চার বছর আমার দুর্দান্ত কাটে। কিন্তু পরের চার বছর ছিল খুবই বাজে। আমি ভেঙে পড়িনি। আমি মনে মনে বলেছিলাম, আমি চেষ্টা করেছি কিন্তু পারিনি। আমি মানসিকভাবে বরাবরই শক্ত। আমি বুঝতে পারি যে আমি ভুল করছি। সে সময় অনেকেই আমাকে বলেছিলেন, পর্দায় আমাকে আরও আবেদনময়ী হয়ে উঠতে হবে। নায়কদের সঙ্গে কীভাবে রোমান্স করতে হয়, তা শিখতে হবে। কীভাবে নায়িকা হয়ে উঠতে হয়, তা শিখতে বলা হয়। তখন এ ধরনের সব পরামর্শ আমি পেয়েছিলাম। আর এই কথা শোনাই আমার ভুল সিদ্ধান্ত ছিল।’

default-image

পরিণীতি চোপড়া সে সময় আত্মতুষ্টিতে ভুগছিলেন। তাই নিজের লক্ষ্য থেকে একটু সরে আসেন, যা তাঁর ক্যারিয়ারে কঠিন দিন ডেকে আনে। তিনি বলেন, ‘মাঝের চার বছর আমি সত্যিই বাজে কাজ করেছিলাম। আমার পাঁচটা ছবি পরপর ফ্লপ করে। আসলে এটা ছিল আমার পাঁচটি ভুল সিদ্ধান্ত। তখন অনেকেই বলেছিল, আমি পাগল হয়ে গেছি। সাধারণ মানুষ থেকে সমালোচক সবাই আমাকে প্রচুর গালমন্দ করেছে। তবে আমি আবার ফিরে এসেছি।’

default-image

এর জন্য পরিণীতির কি অনুশোচনা হয়? তাঁর সাফ জবাব, ‘আমার জীবনে অনুশোচনার কোনো জায়গা নেই। কারও জীবনেই তা নেই। কারণ জীবন খুবই ছোট।’

default-image

সুরজ বরজাতিয়ার উঁচাই ছবিতে পরিণীতিকে দেখা যাবে। এই ছবিতে অমিতাভ বচ্চন, নীনা গুপ্তা, বোমান ইরানি, অনুপম খের আছেন। সন্দীপ ভাঙ্গা পরিচালিত ‘অ্যানিমেল’ ছবিতে রণবীর কাপুরের বিপরীতে অভিনয় করছেন পরিণীতি। এই দুটি ছবি নিয়ে তিনি বলেন, ‘যখন সুরজ বরজাতিয়া পরিচালনা করছেন আর অমিতাভ বচ্চন, নীনা গুপ্তা, বোমান ইরানি, অনুমপ খেরের মতো তারকাদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে অভিনয় করছি, তখন এটি অনেক বড় ব্যাপার। এদিকে রণবীর কাপুরের সঙ্গে কাজ করার স্বপ্ন ছিল আমার। বাধ্য ছাত্রীর মতো তাঁর কাছ থেকে শিখতে চাই। মানুষ হিসেবে রণবীর অত্যন্ত অমায়িক। তার ওপর এই ছবিতে অনিল কাপুর আছেন। তাই অনেক কিছু শেখার সুযোগ পাব।’

default-image
বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন